নিজস্ব প্রতিবেদক : ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের ঔসুধ ডেলিভারি সিডিউল ক্রয়কে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় ১ জনের জিহবা কর্তন ও ৩ জন গুরুত্বর আহত হয়েছে। বৃহস্পাতিবার রাতে নাসের আলম সিদ্দিকী উজ্জল এর সমর্থকরা ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শহীদদের স্মরণে মাল্যদান করে, হামদহ আওয়ামী লীগ অফিসে আসলে, বাসের সিদ্দিকী সমর্থকরা তাদের উপর হামলা করে।

এ হামলায় ৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক আয়ুব হোসেন (৪৭), আওয়ামী যুবলীগের সদস্য চেয়ার আলী (৫৫), ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু জোয়ার্দ্দার (৩৫),ও মেহেদী (২২) গুরুত্বর আহত হয়। এদের মধ্যে তিন জনের আয়ুব আলী, চেয়ার আলী ও বুবুর অবস্থা খুবই আশংকা জনক।

আরও পড়ুন : ধলেশ্বরী নদীর জমি দখলদারদের তালিকায় ঝিনাইদহ সদরের এমপি তাহজিব আলম সিদ্দিকী সমি

আহত আয়ুব আলী জানান, আমরা ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের ঔসুধ ডেলিভারি সিডিউল ক্রয় করি। কিন্ত বাসের সিদ্দিকীর সমর্থকরা তা ক্রয়ে বাধা দেয়। পরবর্তীতে তারা আমাদের উপর দফায় দফায় হামলা করতে থাকে। এরপর গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ঝিনাইদহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে আমাদের আওয়ামী লীগের পার্টি অফিসে আসলে পূর্বথেকে ওৎপেতে থাকা বাসের সিদ্দিকী, টার্মিনাল পাড়ার চাঁন আলী, নাসির, কাঞ্চনপুরের তুহিন, ছক্কা বাবু, শ্যাম, জুয়েল ও রনিসহ বেশ কয়েক জন আমাদের উপর হামলা করে।
নাসের আলম সিদ্দিকী উজ্জল জানান, এলাকার কিছু চিহ্নিত সন্ত্রীরা আমার লোকজনের উপর হামলা করেছে। তাদেরকে আমি চিনি, তারা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী। আমি এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিব।

এ ব্যাপারে বাসের সিদ্দিকী জানান, আমার সমর্থক কিছু ছেলেরা শহীদ মিনারে ফুলদিতে যাচ্ছিল। কিন্তু পথে মধ্যে নাসের আলম সিদ্দিকী উজ্জলের সমর্থরা আমার লোকজনের উপর হামলা করে।

এ ঘটনায় ঝিনাইদহ সদর থানার (ওসি) মোঃ মিজানুর রহমান খাঁন জানান, বৃহস্পতিবার গভির রাতে দুপক্ষের মারামারির একটা ঘটনা ঘটেছে। এখনো পর্যন্ত থানায় কোন লিখিত অভিযোগ আসেনাই। কেউ অভিযোগ করলে আমার তার বিরুদ্ধে আইনআনুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

উল্লেখ্য, নাসের আলম সিদ্দিকী এবং বাসের আলম সিদ্দিকী সংবাদপত্র ও টেলিভিশনে নানা অনিয়মের অন্যতম সমালোচক সাবেক ছাত্রনেতা নূর আলম সিদ্দিকীর আপন বৈমাত্রেয় ভাই। সম্পর্কে বর্তমান ঝিনাইদহ সদর আসনের এমপি তাহজীব আলম সিদ্দিকীর চাচা।