এই আমার দেশ ডেস্ক : রান্নার কলাকৌশল জানা থাকলে সাধারণ খাবারেও আনা যায় অসাধারণ স্বাদ।

রান্না-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে টুকিটাকি কিছু কৌশল এখানে দেওয়া হল।

টমেটো দিয়ে পরিবেশন করা: টমেটোর রস ও ভেতরের নরম জেলির মতো অংশটাই সবচেয়ে মজার। যদি কখনও খাবার পরিবেশনে টমেটো ব্যবহার না করে থাকেন তাহলে পরেরবার করে দেখুন। স্বাদ বাড়াবে কয়েকগুণ।

পেঁয়াজ ও রসুন আগে থেকে কেটে না রাখা: রান্নায় সুবিধা হবে ভেবে অনেকেই আগে থেকে পেঁয়াজ ও রসুন কেটে রাখেন। আগে থেকে কেটে রাখা হলে তা থেকে কড়া গন্ধ বের হয় এবং খাবারের স্বাদ নষ্ট করে। তাই খাবারের স্বাদ বাড়াতে রান্নার ঠিক আগে পেঁয়াজ ও রসুন কেটে নিন।

কড়া তাপে সবজি ভাজা: খাবার পরিবেশন করতে উচ্চতাপে সবজি কড়া ভাজা করে নিন। এতে খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি পায়।

নিয়ম অনুযায়ী রান্না করা: প্রতিটি রান্নারই একটা আলাদা নিয়মাবলি থাকে, সে অনুযায়ী রান্না করলে খাবারের স্বাদ ও ঘ্রাণ বজায় থাকে। যদি বলা হয়ে থাকে প্রথমে তেল ও পরে পেঁয়াজ, রসুন ও শুকনা মসলা দিতে, তাহলে তা-ই করুন। এতে নিজেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

আগে পাত্র গরম করা: রান্নার জন্য চাই ধৈর্য্য। আর প্রথম ধাপ হল পাত্র ভালোভাবে গরম করে নেওয়া। খাবার দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পাত্রের তাপমাত্রা কমতে থাকে। তাই পাত্র আগে পর্যাপ্ত গরম করে তাতে রান্না করলে খাবারের স্বাদ ও ঘ্রাণ বজায় থাকবে।

মসলা ভেজে নেওয়া: রান্নার স্বাদ বাড়াতে এতে ব্যবহৃত মসলা, মাখন বা তেল দিয়ে আগে থেকে দুএক মিনিট ভেজে নিন। এটা রান্নার স্বাদ বাড়াতে সাহায্য করে।

তাজা চর্বি: সকল ভেষজ, তেল এবং চর্বি-জাতীয় খাবার তাজা অবস্থায় বেশি সুস্বাদু থাকে। বিশেজ্ঞদের মতে, অক্সিজেন ও প্রাকৃতিক আলোতে যত কম নেওয়া যায় এদের স্বাদ তত বেশি ভালো থাকে।

খাবার ঠাণ্ডা হতে দিন: গরম খাবার মজাদার। তবে মনে রাখতে হবে আমাদের জিভ তাপ সংবেদনশীল। তাই খাবার পরিবেশনের সময় দেখবেন যেন তা হালকা গরম থাকে।

খাবারের বাদামি ও সোনালি রং: খাবার বেইক করার ক্ষেত্রে এই দুই রং গুরুত্বপূর্ণ। বেইকিং বিশেষজ্ঞদের মতে, সোনালি রং নির্দেশ করে খাবার ঠিকভাবে রান্না হয়েছে এবং বাদামি রং স্বাদ বাড়ায়।

তাই কেক পাই যাই বেইক করুন না কেনো এখন থেকে খেয়াল রাখবেন বাইরের দিক গাঢ় সোনালি-বাদামি রং হয়েছে কিনা।