নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার ৫ম সম্মেলন অনুষ্ঠিত ব্যাপক আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে। সম্মেলনে বিল্লাল হোসেনকে সভাপতি ও হাবিবি জহির রায়হানকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট এক নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শুক্রবার “সময়ের ভ্রান্তিতে টলো না, লড়াইটা কখনোই ভুলো না” স্লোগানকে সামনে রেখে দিনব্যাপী সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে এ সম্মেলন হয়। জেলা শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে সকাল ১০টায় জাতীয় সঙ্গীতের সাথে জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়। এরপর নানা সাজের ও রঙের এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদিক্ষণ শেষে পুনরায় একই স্থানে এসে শেষ হয়। পরে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী চুয়াডাঙ্গা জেলা সংসদের সভাপতি এ্যাড. নওশের আলীর সভাপতিত্বে অতিথি হিসেব উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. শুকুর বাঙালী, চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ সভাপতি অধ্যক্ষ হামিদুল হক মুন্সি, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আবদুল মোহিত, উদীচী কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সহসভাপতি সুনিল ধর, কেন্দ্রীয় সদস্য ও মাগুরা জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ দে, চুয়াডাঙ্গা উদীচীর সহসভাপতি বিল্লাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক হাবিবি জহির রায়হান।

এরপর সত্যেন সেন গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় শতাধিক শিক্ষার্থী ও ক্ষুদে সঙ্গীত শিল্পীসহ উদীচী কর্মীরা অংশ নেয়। প্রতিযোগিতা শেষে বিকাল ৩টায় আনুষ্ঠানিকভাবে পুরষ্কার বিতরণ অনষ্ঠিত। অনুষ্ঠানে উদীচী চুয়াডাঙ্গার সভাপতি এ্যাড. নওশের আলীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি থেকে পুরষ্কার বিতরণ করেন চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরি জিপু।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধুরি জিপু বলেন, উদীচী মানুষ গড়ার কারিগড়। চুয়াডাঙ্গা উদীচী সব ভালো কাজের সাথে জড়িত। সকল ভালো কাজে চুয়াডাঙ্গা উদীচী আছেই। সাংষ্কৃতিক অঙ্গনে সারা দেশে উদীচী অন্যতম। এ গণসংগঠন মানুষের কল্যাণে কাজ করে।

পরে চুয়াডাঙ্গা উদীচীর ৫ম জেলা সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য সুনিল ধর। কাউন্সিলে আগের কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে ২৭ সদস্য বিশিষ্ট নতুন এক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিতে বিল্লাল হোসেন সভাপতি এবং হাবিবি জহির রায়হানকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- সহসভাপতি কাজল মাহমুদ, আব্দুস সাত্তার, জামাল উদ্দীন, আবিদুল ইসলাম বাপ্পি, সহসম্পাদক শেখ ফরিদ আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ আদিল হোসেন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মিলন কুমার অধিকারী, শ্রীদাম রায়, শাওন কুমার রায়, তাসলিমা আলম, তন্ময় কুমার বসু, শাহেদ জামাল, সজিব, নির্বাহী সদস্য এ্যাড. নওশের আলী, ডা. হান্নান, ইকবাল হোসেন, শাহিন সুলতানা মিলি, সেলিম মল্লিক, তুষার সিকদার, বিল্পব, অমিত কুমার সাধু খা, সাইফুল ইসলাম।