ডেস্ক : ঘরের মাঠে মেসির জাদুকরী পারফর্মে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে উঠে গেছে বার্সেলোনা। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছিল চমক উপহার দেওয়ারঅপেক্ষায়। কিন্তু মেসি জাদুতে উড়ে গেছে তারা। হেরেছে ৩-০ গোলের ব্যবধানে। দুই লেগ মিলিয়ে ৪-০ গোলে হেরে বিদায় নিয়েছে প্রিমিয়ার লিগের দলটি।

ইউরোপ সেরার এই প্রতিযোগিতায় প্রথম লেগে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ম্যানইউয়ের আত্মঘাতী গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সা। তবে পারফর্ম দিয়ে ভক্তদের মন জয় করতে পারেনি কাতালানরা। দ্বিতীয় লেগে চার মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে তার জবাব দেন মেসি। তিনি ম্যাচের ১৬ এবং ২০ মিনিটে দুই গোল করে ম্যানইউয়ের ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগে পানি ঢেলে দেন। পরে দ্বিতীয়ার্ধের ৬১ মিনিটে গোল করেন কুতিনহো। তাতে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সা।

দারুণ এই জয়ে বার্সা ২০১৪-১৫ মৌসুমের পর চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ চারে উঠল। আগের তিন আসরে কোয়ার্টার ফাইনালে কাটা পড়ে কাতালানরা। আর ম্যানইউ এ নিয়ে আটবার শেষ আট থেকে বিদায় নিলো। অন্য কোন ক্লাবের চেয়ে যা বেশি। মেসির গোল পাওয়াও তার জন্য বড় শাপমোপন। ২০১৩ সালের পর চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে গোল পেলেন বার্সা তারকা।

ম্যানইউ অবশ্য হারের জন্য নিজেদের ভাগ্যকে দুষতে পারে। ১৯৯৯ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তারে বার্সার মাঠ ক্যাম্প ন্যুতে ইতিহাস গড়েছিল। এবার তারা শুধু ভুল করল। প্রথম লেগে আত্মঘাতী গোলের কারণে ঘরের মাঠে হারে তারা। দ্বিতীয় লেগে বার্সার মেসি প্রথম গোলটি পান ইয়ংয়ের ভুলের কারণে। আর মেসির দ্বিতীয় গোলটিতে দায় স্পেন গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়ার।