নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সময়ে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ ছিল বিভক্ত এবং দলের মধ্যে অনৈক্য ছিল সুস্পষ্ট, দল ছিল অনেকটাই নেতৃত্বহীন। এরকম একটি পরিস্থিতিতে এসে তিনি শুধু দলের বাইরের প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হননি, দলের মধ্যেও প্রতিকূল অবস্থার মুখোমুখি হয়েছেন। দলের মধ্যেই অনেক নেতার সঙ্গে তাকে যুদ্ধ করতে হয়েছে, দলের নীতি আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য অনেকের বিরাগভাজনও হয়েছেন তিনি। আওয়ামী লীগের একটি অংশ চেয়েছিল শেখ হাসিনা পুতুল সভাপতি হয়ে দলের দায়িত্ব পালন করবেন। কিন্তু ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করে পুতুল দায়িত্ব পালন না করে জনগণ এবং তৃণমূল আওয়ামী লীগের ভালোবাসায় এবং আস্থায় দলের অনিবার্য নেতায় পরিণত হয়েছিলেন। এটা দলের ভেতরেই অনেকে সহ্য করেনি। তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের দ্বৈরথ ছিল পুরনো। যেই দ্বৈরথই থাকুক না কেন, প্রয়াত আওয়ামী লীগের নেতা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছিলেন যে আওয়ামী লীগ শুধু একটি রাজনৈতিক দল নয়, আওয়ামী লীগ একটি অনুভূতির নাম। দেখা যাচ্ছে যে, আওয়ামী লীগ সভাপতি তার ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ রাজনৈতিক জীবনে যাদের সঙ্গে তার ঘাত-প্রতিঘাত হয়েছিল, যাদের সঙ্গে রাজনীতির নীতি আর আদর্শের দ্বৈরথ হয়েছিল- তাদের সন্তানদেরকেই তিনি টেনে তুলে ধরছেন, তাদের লালন করছে, স্নেহের মাধ্যমে তাদের বিকশিত করার চেষ্টা করছেন। এটাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিক। প্রধানমন্ত্রীর এরকম স্নেহধন্য দ্বিতীয় প্রজন্মের কয়েকজনের কথা নিয়ে আজকের এই প্রতিবেদন-

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল

আওয়ামী লীগ সভাপতি দায়িত্ব গ্রহণের পর যে কয়জনের সহযোগীতা পেয়েছিলেন সবচেয়ে বেশি, তাদের মধ্যে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের অবিসংবাদিত নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরী ছিলেন অন্যতম। তার সঙ্গে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রকাশ্য দ্বৈরথের কথাও কারো অজানা নয়। যেকোনো ব্যাপারে তার দ্বিমত থাকলে তিনি তার প্রকাশ্য সমালোচনা করতেন। বিশেষ করে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসার পর চট্টগ্রাম বন্দর নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতির সঙ্গে মহিউদ্দিন চৌধুরীর বিরোধ ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও চট্টগ্রামের অভ্যন্তরীন কোন্দল নিয়েও আওয়ামী লীগ সভাপতির সঙ্গে তার বিভিন্ন বিরোধ এবং দ্বন্দ্বের কথা শোনা গিয়েছিল। কিন্তু শেষ বিচারে মহিউদ্দিন চৌধুরী যে আওয়ামী লীগ এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী, তা নিয়ে দলে কোনো দ্বিধাদ্বন্দ্বই ছিল না। তাই মহিউদ্দিন চৌধুরী মারা যাওয়ার পর তার ছেলে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে মনোনীত করেন শেখ হাসিনা। শুধু তাই নয়, তাকে নির্বাচনে মনোনয়নও দেওয়া হয়। সেই আসনে জাতীয় পার্টির হেভিওয়েট একজন প্রার্থীকে বাদ দিয়ে তার মনোনয়ন পাওয়াটা ছিল বেশ বিস্ময়কর। মনোনয়ন পর্যন্তই স্নেহের সীমা থেমে ছিল না। এরপর মন্ত্রিসভায় তাকে শিক্ষা উপমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। নওফেল রাজনীতিতে নবীন, তাকে একসঙ্গে এতো দায়িত্ব দিলে সেই ভার তিনি বইতে পারবেন কিনা তা নিয়ে আওয়ামী লীগে যথেষ্ট সমালোচনা রয়েছে। কিন্তু শেখ হাসিনা দ্বিতীয় প্রজন্মের বিকাশের জন্যই হয়ত নওফেলকে দায়িত্ব দিয়েছেন। দলের প্রতি মহিউদ্দিন চৌধুরীর যে অবদান, তার স্বীকৃতিস্বরূপই শেখ হাসিনার এই দায়িত্ববণ্টন বলে অনেকের ধারণা।

নাহিম রাজ্জাক

আওয়ামী লীগ সভাপতির স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর দলের মধ্যে যারা সবচেয়ে বেশি বিরোধিতা করেছিল তার মধ্যে আবদুর রাজ্জাক। ১৯৮৪ সালে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একটি অংশ পেরিয়ে গিয়ে বাকশালও গঠন করেছিল। যদিও তারা পরে ফিরে এসেছিল। ওয়ান ইলেভেনের সময়ে আবদুর রাজ্জাক শেখ হাসিনার মাইনাস চেয়ে প্রস্তাব উত্থাপন করেছিলেন। অথচ তিনি বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত একজন সৈনিক, দলের মধ্যে তার যথেষ্ট জনপ্রিয়তা ছিল। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে তিনি কখনো বিচ্যুত হননি। তার মৃত্যুর পর তার ছেলে নাহিম রাজ্জাককে শেখ হাসিনা নির্বাচনে মনোনয়ন দেন। দলের থিংকট্যাংক হিসেবে তিনি পরিচিত, সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের হয়েও তিনি কাজ করছেন। দলের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন কাজেও তার অংশগ্রহণ লক্ষণীয়। শেখ হাসিনার বিশেষ স্নেহে রাজনৈতিকভাবে ক্রমশ বিকশিত হচ্ছেন নাহিম রাজ্জাক।

শেখ ফাহিম

এবারের এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন শেখ ফজলুল করিম সেলিমের ছেলে শেখ ফাহিম। শেখ ফজলুল করিম সেলিম বঙ্গবন্ধু পরিবারের একজন সদস্য, শেখ হাসিনার ফুপাতো ভাই। তারপরেও রাজনীতিতে শেখ হাসিনার সঙ্গে তার দ্বন্দ্বের খবর নতুন নয়। যখন আওয়ামী লীগের সবাই ঘুরেফিরে মন্ত্রী হচ্ছেন, তখন শেখ সেলিমকে মন্ত্রী না করা নিয়ে বঙ্গবন্ধু পরিবারে বেশ দুঃখ-হতাশাও রয়েছে। একসময় গোপালগঞ্জের রাজনৈতিক কর্তৃত্ব ছিল শেখ ফজলুল করিম সেলিমের। কিন্তু তৃণমূল আওয়ামী লীগের তুমুল জনপ্রিয়তার জোরে শেখ সেলিমের সেখানে তেমন কোনো কর্তৃত্ব নেই। সারাদেশের রাজনীতিতেও আওয়ামী লীগের নেতা বলতে শেষ কথা শেখ হাসিনাই। এ নিয়ে কি শেখ সেলিমের মধ্যে কোনো হতাশা বা দুঃখবোধ আছে? শেখ সেলিম যে বঙ্গবন্ধু পরিবারের, সেই স্বীকৃতি প্রধানমন্ত্রী সবসময়েই দেন। শেখ সেলিমের সঙ্গে রাজনৈতিক বিভিন্ন বিষয়ে শেখ হাসিনার দূরত্ব বা দ্বন্দ্ব যাই থাকুক না কেন, শেখ ফাহিম এখন এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ব্রুনেই সফরেও গিয়েছিলেন। এমন একটি পদ পাওয়া নিঃসন্দেহে একটি বড় ব্যাপার। এবং দ্বিতীয় প্রজন্মের ব্যবসায়ী হিসেবে শেখ ফাহিমকে শেখ হাসিনা বিকশিত করছেন তা এই ঘটনা থেকেই স্পষ্ট হয়।

সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ

আওয়ামী লীগ সভাপতি দেশে ফেরার পর যারা তাকে বেশি সহযোগীতা করেছিল তাদের মধ্যে চট্টগ্রামের নেতা আখতারুজ্জামান চৌধুরী ছিলেন অন্যতম। তিনি আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে নানা কারণে মন্ত্রীত্ব পাননি। শেখ হাসিনার বিশ্বস্ত সহযাত্রী ছিলেন, বিভিন্ন দুঃসময়ে তার সহযোগীতা অকপটে স্বীকার করেন শেখ হাসিনা। কিন্তু তাকে কখনো মন্ত্রী করা সম্ভব হয়নি। দলের অন্যতম অর্থদাতাও ছিলেন তিনি। সম্ভবত সেই কারণেই তার ছেলে সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদকে গত মেয়াদে প্রতিমন্ত্রী এবং এই মেয়াদে পূর্ণমন্ত্রী করা হয়েছে। শেখ হাসিনা খুবই সচেতনভাবে তাকে দ্বিতীয় প্রজন্মের নেতা তৈরি করছেন এবং জাতীয় রাজনীতিতে অন্তর্ভূক্ত করছেন।

এমন অনেক দ্বিতীয় প্রজন্মের নেতাই শেখ হাসিনার স্নেহে বেড়ে উঠছেন। এর মাধ্যমে রাজনীতিতে তরুণ প্রজন্ম তৈরির কাজ করছেন সবার অগোচরেই। যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করে, সেই আদর্শের সঙ্গে কখনো বিশ্বাসঘাতকতা করেনি- তাদের পরিবারকে তিনি আস্তে আস্তে রাজনীতির মূলধারায় নিয়ে আসছেন। আওয়ামী লীগ যে একটা পরিবার, একটা অনুভূতি সেটা শেখ হাসিনা বার বার তার কাজের মাধ্যমে প্রকাশ করছেন।