ডেস্ক : বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ ম্যাচটি খেলে ফেললো টাইগাররা। পাকিস্তানের বিপক্ষে জিততে না পারায় শেষটা গেল বিবর্ন। এই ম্যাচের মধ্যদিয়ে নিজের ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ ম্যাচটি খেলে ফেললেন টাইগার দলপতি মাশরাফি। তবে, তার ওয়ানডেতে অবসর নিয়ে বাতাসে যে গুঞ্জন উঠেছিল, সেটি পরিস্কার করে দিলেন ম্যাশ।

ক্রিকেটের সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী মাঠ লর্ডসে ম্যাচ শেষে মাশরাফি জানালেন, দেশে ফিরেই অবসরের সিদ্ধান্ত জানাবেন তিনি।

২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কার কলম্বোতে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকেও আচমকা অবসর নিয়েছিলেন মাশরাফি। টসের আগে নিজের ফেসবুক পাতায় আর টসের সময় দিয়েছিলেন অবসরের ঘোষণা। ওয়ানডেতেও তেমনটি ঘটেনি।

মাশরাফির একটা অধ্যায় আজ শেষ হয়ে গেল। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শেষ হলো বাংলাদেশের এবারের বিশ্বকাপ। সেই সাথে শেষ হলো মাশরাফির বিশ্বকাপও। এটা ম্যাশ আগেই জানিয়েছিলেন। দেশ থেকে যাওয়ার আগে বলেছিলেন, এবারের পর বিশ্বকাপ আর খেলবেন না। পাকিস্তানের বিপক্ষে তাই এই ম্যাচটিই বিশ্বকাপে নড়াইল এক্সপ্রেসের শেষ ম্যাচ। কিন্তু এবার বিশ্বকাপে তার ব্যাক্তিগত পারফর্মেন্স ছিল সাদামাটা।

ভারতের কাছে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেয় বাংলাদেশ। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে এই বিশ্বকাপে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি ম্যাশ। আট ম্যাচের মাত্র একটিতেই পুরো ১০ ওভার বোলিং করেছেন, পেয়েছেন মাত্র একটি উইকেট। চোট নিয়ে খেলে দলকে এক সূতোয় বেঁধে এগিয়ে গিয়েছেন একের পর এক ম্যাচ।

দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে ডারবানে কানাডার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হয়েছিল মাশরাফির বিশ্বকাপ যাত্রা। সেই যাত্রা শেষ হলো ক্রিকেটের তীর্থভূমি লর্ডসে, পাকিস্তানের বিপক্ষে। এর মধ্যে খেলেছেন চারটি বিশ্বকাপ।