মোঃ জয়নাল আবেদীন টুকু,নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে : বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের যাওয়া আসার একমাত্র সড়কটি বর্তমানে দেখার কেউ নেই।

এ সড়ক দিয়ে পুলিশ সদস্যদের চলাচলের পাশাপাশি দক্ষিণ বাইশারী ও পার্শ্ববর্তী রামু উপজেলার হাজার হাজার মানুষ ও স্কুল কলেজ মাদ্রাসা মক্তব পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীরা চলাচলে করে প্রতিনিয়ত। এই জনগুরত্বপুর্ন সড়কটি দীর্ঘকাল যাবৎ মেরামত না করায় অভিভাবকহীন হয়ে বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে।

সরজমিনে দেখা যায়, বাইশারী বাজার হয়ে তদ্ন্ত কেন্দ্র যাওয়ার পথে কাপ্তাই শিয়া, সাংগু ফরেষ্ট অফিস সংলগ্ন রাস্তার মাথায় গাড়ী চলাচলতো দুরের কথা হেটে যাওয়ার সময় পা কাদা মাটিতে পিছলিয়ে অনেক দুরে যেয়ে পড়ে গুরুতর আহত হচ্ছে লোকজন।

স্থানীয় বাসিন্দা আবদুর রহমান ও মুফিজুর রহমান জানান দৈনিক অনেক লোকজন ও ছাত্র ছাত্রীরা পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত সহ বই খাতা কলম নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এবং অনেকে আহত হয়েছেন। স্থানীয়রা আরো জানান একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্টান গত ৪ মাস আগে সড়কটি মেরামতের নামে ইট তুলে লাপাত্তা হয়ে যায়। যার ফলে এখন চরম জনদুর্ভোগে পরিণত হয়েছে।

বাইশারী পুলিশ তদন্তকেন্দ্রটি পুরো বাইশারী এলাকা সহ পার্শ্ববর্তী রামু উপজেলার কয়েকটি গ্রামের জন্য নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

সড়কটির বেহাল দশায় পরিনত হওয়ায় সহজে গাড়ীযোগে তদন্ত কেন্দ্র হইতে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছানো সম্ভব নয়। শুধু মাত্র সড়কের পাচশত গজ জায়গা মেরামত না হওয়ায় অর্ধলাখ লোকের জিবনের নিরাপত্তা নিয়ে শংকা রয়েছে। নিরাপত্তা রক্ষীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে না পৌছালে রর্ষা মৌসুমে সন্ত্রাসী চোর ডাকাতের উপদ্রব বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক মাঈনুদ্দিন বলেন সড়কের বেহাল দশার জন্য কোন কাজে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছা মুশকিল হয়ে পড়েছে।

যার কারনে জন নিরাপত্তা এখন হুমকির মুখে। তিনি সড়কটি দ্রুত মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

এবিষয়ে বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ,আলম কোম্পানি বলেন, আমি নিজেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।

নিরাপত্তা ও শান্তির জন্য পুলিশ সদস্যরা যাতে দ্রুত ঘটনাস্থল পৌছাতে পারে এবং জনসাধারণও যেন চলাচল করতে পারে এ সকল বিষয় চিন্তা করে উক্ত জায়গার জন্য একটি বিশেষ প্রকল্প বরাদ্ব দেওয়া হয়েছে। দ্রুত কাজ শুরু হয়ে যাবে।