প্রতিনিধি, চুয়াডাঙ্গা
চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার ইসলামপাড়ায় বিশ্বকাপ খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে
দুই যুবককে কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করার ঘটনা ঘটেছে। তাদেরকে আহত আবস্থায় উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর উত্তেজিত জনতা হামলাকারীকে আটক করে গনধোলাই দেয়। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ হামলাকারী পলাশকে আটক করে থানায় নেয়। গতকাল রোববার রাত ১১টার সময় ইসলামপাড়ার একটি চা’য়ের দোকানে এ ঘটনা ঘটে।
আহতরা হলেন, চুয়াডাঙ্গা বাগানপাড়ার জাহাঙ্গগীর আলমের ছেলে মানিক হোসেন (২৪) ও একই এলাকার ইন্নার ছেলে নওয়াজ শরিফ (২৫)। হামলাকারী পলাশ ইসলামপাড়ার মানিকের ছেলে।
আহত ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ইসলামপাড়ায় একটি চা’য়ের দোকানে অন্যান্যদের সাথে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনাল ম্যাচ খেলা দেখছিল এলাকার মানিক, নওয়াজ। এসময় মানিক ও নেওয়াজের সাথে একই এলাকার মানিকের ছেলে পলাশের খেলা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে তর্কাতর্কি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের হাতাহাতি হয়। পরে পলাশ কিছু না বলে চলে যায়। এর কিছুক্ষন পর পলাশ একটি দেশীয় অস্ত্র দিয়ে পিছন থেকে মানিকের মাথায় কোপ মেরে পালিয়ে যায়, এ সময় নওয়াজ পলাশকে ধরতে গেলে নওয়াজের হাতেও একটি কোপ মারে পলাশ। পরে রক্তাক্ত মানিক ও নওয়াজকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে, স্থানীয়রা হামলাকারী পলাশকে আটক করে গনধোলায় দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারী পলাশকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিতসা দিয়ে থানা হেফাজতে নেয়।

হাসাপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. জাহাঙ্গীর আলম জানান, মানিকের অবস্থা আশংকাজনক। মানিকের মাথার পিছনের অংশে ধাড়ালো অস্ত্রের কোপে গুরুত্বর জখম হয়েছে। তাঁকে তাৎক্ষনিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি রাখা হয়েছে। মানিকের অবস্থার উন্নতি না হলে তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার্ড করা হতে পারে। এদিকে নওয়াজ প্রাথমিক চিকিতসা শেষে বাড়ি ফেরে।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু জিহাদ ফকরুল আলম খান জানান, ইসলামপাড়ায় খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে মানিক ও নওয়াজ নামের দু যুবককে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা শুনেছি। হামলাকারীকে ধরে উত্তেজিত জনতা গনধোলায় দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। আমরা হামলাকারীর ব্যবহৃত দেশীয় অস্ত্রটি উদ্ধার করেছি। ঘটনার পিছনে অন্য কোন কারণ আছে কিনা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এখনো কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে আইনাগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানায় এই কর্মকর্তা্।