ইরাকের একদল বিক্ষোভকারী কারবালায় ইরানের কনস্যুলেট প্রাঙ্গনে ভাংচুর এবং আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি করে পুলিশ। গুলিতে তিন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। সোমবার দেশটির পুলিশ এবং চিকিৎসা কর্মকর্তারা নিহতের  এ খবর নিশ্চিত করেন। ইরাকের সাবেক শাসক সাদ্দাম হোসেইনের পতনের পর ইরাকে ইরান বিরোধী এত বড় বিক্ষোভ আর হয়নি। রোববার রাতে বিক্ষোভকারীরা ইরানের কনস্যুলেটের সামনে জড়ো হয়। তারা টায়ারে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং ‘ইরান বেরিয়ে যাও, কারবালা মুক্ত হোক’ বলে স্লোগান দেয়। সেখানে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিক্ষোভকারী বলেন, “আমরা আজ এখানে অভ্যুত্থান ঘটাতে এসেছি এবং ইরানের কনস্যুলেটের সামনে বিক্ষোভ করছি।  আমরা ইরানের পতাকা টেনে নামিয়ে ইরাকের পতাকা টানাতে এসেছি।”বেকারত্ব এবং সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে গত অক্টোবর থেকে ইরাকে বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত আড়াইশ’র বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। ইরাকি হাই কমিশন ফর ‍হিউম্যান রাইটস (আইএইচসিএইচআর) রোববার রাতে পুলিশের গুলিতে আহত তিন জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত  করে বলেছে, এ ঘটনায় আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যও রয়েছেন। আইএইচসিএইচআর জানায়, বিক্ষোভকারীরা ফটক ভেঙে কনস্যুলেটের ভেতর প্রবেশের চেষ্টা করেছিল। নিরাপত্তারক্ষীদের দাবি, বিক্ষোভকারীরা সেখানে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার চেষ্টাও করেছিল। তাই তারা তাদের থামাতে বাধ্য হয়ে গুলি করে। ইরাকের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েল পক্ষ থেকেও এক বিবৃতিতে কারবালায় ইরানি কনস্যুলেটে হামলার নিন্দা জানানো হয়। “ইরাক সরকার দেশের সব মিশন এবং কনস্যুলেটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ওইসব প্রতিষ্ঠানে যে ‘রেড লাইন’ দেওয়া আছে তা অতিক্রম করা উচিত না।”