কুষ্টিয়া প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়া মিরপুর থানার চাঞ্চল্যকর ভায়রা(স্ত্রীর বোন জামাই)কে হাতুরি মেরে হত্যার দায়ে লালন গাজী(৩৫)নামে কাঠমিস্ত্রীর মৃত্যুদন্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহষ্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক অরূপ কুমার গোস্বামী জনাকীর্ণ আদালতে আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন।দন্ডপ্রাপ্ত হলেন- মিরপুর উপজেলার চিথলিয়া গ্রামের মৃত: মকবুল গাজীর ছেলে কাঠমিস্ত্রি লালন গাজী। আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ১৪মার্চ বেলা পৌনে ১২টায় মিরপুর খন্দরবাড়িয়া পৌর পশুহাটের পানজাবারে চা-পান দোকানদার চেনি মোল্লা পান কেনার সময় আসামী লালন গাজী পূর্ব থেকে সৃষ্ট দাম্পত্য কলহের জেরে আক্রোশ বশত: চেনি মোল্লাকে হাতুরি দিয়ে মাথায় ও ঘাড়ে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। স্থানীয়রা আহত চেনি মোল্লাকে উদ্ধার করে মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেøক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত: ঘোষনা করেন। এঘটনায় নিহতের ভাই মিরাজুল ইসলাম মেনি মোল্লা বাদি হয়ে মিরপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ৩১ আগষ্ট আসামী লালন গাজীর বিরুদ্ধে দ:বি:৩০২ ধারায় অভিযোগ এনে আদালতে চার্জসীট দাখিল করেন পুলিশ।

সত্যতা নিশ্চিত করে আদালতের সরকারী কৌশুলী এ্যাড. অনুপ কুমার নন্দী জানান, মিরপুর থানার চাঞ্চল্যকর হাতুরি পেটায় নিজ ভায়রাকে হত্যা দায়ে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমানিত হওয়ায় আসামী লালন গাজীকে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করেন আদালত।