জহির উদ্দিন মাহমুদ, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরে জম্ম থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে এক বিছানায় দিন কাটছে বড় ভাই খোরশেদ আলমের। এদিকে, তার ছোট ভাই মোরশেদ আলম মানসিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় তাকে পাঁচ বছর ধরে শিকলবন্দী করে রাখা হয়েছে। এ দুই প্রতিবন্ধী সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন লক্ষ্মীপুরের চররুহিতা ইউপির চর লামচী গ্রামের বাসিন্দা রিকশাচালক আজাদ হোসেন ও খুরশিদা বেগম দম্পতি। অর্থের অভাবে তাদের চিকিৎসা করাতে পারছেন না তারা। এ অবস্থায় সরকারের কাছে চিকিৎসা সহায়তা চেয়েছে ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী।
পরিবার থেকে জানায়, জন্মের পর সাত বছর পর্যন্ত ভালো ছিল মোরশেদ। হঠাৎ করে খিঁচুনি উঠে মানসিক প্রতিবন্ধী হয়ে যায় সে। অর্থাভাবে তার বাবা চিকিৎসাও করাতে পারছেন না।
এদিকে, তাদের প্রথম সন্তান খোরশেদ আলমও ঘরে কাতরাচ্ছেন। জন্ম থেকেই শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়ায় ৩২ বছর ধরে এক বিছানায় দিন কাটছে তার। তবে হাঁটতে পারার স্বপ্ন দেখেন খোরশেদ। তিনি বলেন, আমি একটু হাঁটতে চাই, আমার অসুখের কারণে আমি বিছানা থেকে উঠতে পারি না।
রিকশাচালক বাবা আজাদ জানান, আগে রিকশা চালিয়ে কোনোভাবে তাদের ওষুধপত্রসহ যাবতীয় খরচ চালাতাম। কিন্তু পা ভেঙে যাওয়ায় এখন আর রিকশা চালাতে পারি না। বাড়ির পাশে পান দোকান দিয়ে সংসার চালাতে হয়। কিন্তু এতে সংসার চলে না। কোনদিন খেয়ে কোনদিন না খেয়ে থাকতে হয়। সরকারিভাবে যদি দুই সন্তানের চিকিৎসা ব্যয় বহন করা হয় তাহলে ছোট ছেলেটা সুস্থ হতে পারে আর বড় ছেলেটা অন্তত হুইল চেয়ারে বসতে পারতো।
মা খুরশিদা বেগম জানান, আমরা দুই প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছি। প্রতি ছয় মাস পরপর ৪২০০ টাকা করে প্রতিবন্ধী ভাতা পেলেও তা দিয়ে কিছুই হচ্ছে না।
এলাকাবাসীরাও বলছেন, সরকারি সহযোগিতার পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানরা এসব পরিবারের সেবায় এগিয়ে আসলে বদলে যাবে তাদের জীবন।
এ ব্যাপারে সদর ইউএনও শফিকুর রেদোয়ান আরমান শাকিল বলেন, এ দুই প্রতিবন্ধীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করাসহ সরকারি সব সুযোগ-সুবিধা দেয়া হবে।