টাইমস্ ডেস্কঃ করোনাভাইরাস আক্রান্ত দুই যাত্রী কে কলকাতা বিমান বন্দরে চিহ্নিত করার পর থেকেই উদ্বেগ ছড়াচ্ছে। চিনে এই ভাইরাস ভয়াল আকার নিলেও তাদের সীমান্ত লাগোয়া নেপাল-ভারত-ভুটানে তেমন ছড়ায়নি। যদিও নেপালে দুই ব্যক্তি, ভারতে কয়েকজনের দেহে মিলেছে এই ভাইরাস। সন্দেহজনক তালিকায় থাকা অনেকেই চিকিৎসার কড়া নজরে। এই অবস্থায় করোনা ভইরাস প্রতিরোধে আয়ুষ মন্ত্রক আগেই হোমিওপ্য়াথি চিকিৎসার কথা জানায়।

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় এই ওষুধের নাম-আরসেনিকাম অ্যালবাম ৩০ (Arsenicum album 30). তবে এই ওষুধ করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের জন্য না। যারা আক্রান্ত নন তারা আগে থেকে এটি সেবন করলে ভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারবেন বলেই কলকাতার বিশিষ্ট হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক শক্তিনাথ ভট্টাচার্যের অভিমত।www.kolkata24x7.com-কে আরসেনিকাম অ্যালবাম ৩০ (Arsenicum album 30) ওষুধের নাম জানিয়ে তিনি বলেছেন, চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে এটি সেবন করতে হবে।

সেবন বিধিও চিকিৎসক জানিয়ে দেবেন। দমদম বিমান বন্দরে থাইল্যান্ড থেকে আসা দুই যাত্রীর দেহে করোনাভাইরাস চিহ্নিত হওয়ার পর তাদের বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। এছাড়াও আয়ুষ মন্ত্রকের নির্দেশিকায় বলা রয়েছে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাস্ক পরে থাকতে হবে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা খুবই জরুরি। সাধারণ সর্দি জ্বর এই করোনা ভাইরাসের হামলার লক্ষণ। এরকম হলে অতি দ্রুত চিকিৎসক বা বিশেষজ্ঞ অথবা নিকটবর্তী ভাইরাস পরীক্ষা শিবিরে যোগাযোগ করুন।

অন্যদিকে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু ) জানিয়ে দিয়েছে সেই আরও ১৮ মাস লাগবে ভয়ঙ্কর করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধকারী টিকা বের করতে। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় হু সদর দফতর থেকেই জানানো হয়েছে। অযথা ভয় পাবেন না। স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে।