নোয়াখালী প্রতিনিধি : অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী খুনি চেয়ারম্যান বাহিনীর হাত থেকে এলাকাবাসীকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিধবা মহিলা মেম্বার আকুতি জানিয়েছেন। গতকাল ৬ জুলাই সোমবার দুপুরে নোয়াখালী জেলা সংবাদপত্র পরিষদ কার্যালয়ে ইউপি মহিলা মেম্বার রৌশন আক্তার বলেন, নোয়াখালীর সুধারামের পূর্ব চরমটুয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আলম, সদর উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পরিচয় দিয়ে ৩ ইউনিয়ন জুড়ে মাদক, অস্ত্র ও সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে রাজ রাজত্ব বীরদর্পে চালাচ্ছে। তার নির্যাতন হামলা ও মামলা দিয়ে এলাকায় মগের মুল্লুক কায়েম করেছে। তিনি বলেন, আমার প্রিয় স্বামী আবদুর রহমান জসিম (৩৮) কে ২০১৪ সালে মাদক স¤্রাট শিপন বাহিনীকে দিয়ে জামাল নগর পোলের পশ্চিম পার্শ্বে প্রকাশ্য দিবালোকে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে। থানা পুলিশ ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দিলেও আসামীদের ৪ বছরেও গ্রেফতার করছে না। মহিলা মেম্বার বলেন, চেয়ারম্যান বাহিনীর চাঁদাবাজি, মাদক, অস্ত্র ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে আবুল কাশেমের হামদদ আলিম মাদ্রাসার সামনের ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হামলা করে লুটতরাজ চালায়। এক পর্যায়ে ৮০ জনের সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আনন্দ উল্লাস করে মন্ত্রীরপুল বাজারে ভেটেনারী ঔষদের দোকানে হামলা, লুট ও অগ্নিসংযোগ করে ৪৩ লাখ ৫৭ হাজার ৭শ টকার ক্ষতি সাধন করলে পিবিআই পুলিশের এস.আই মো: আবদুল আউয়াল আদালতে চেয়ারম্যান নুরুল আলম সহ তার বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করলে চেয়ারম্যান ৪ দিন পর জেল খেটে বের হয়ে আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। জেলা ছাত্রলীগ নেতা জোবায়ের হোসেন বলেন, নুরুল আলমের গ্রæপ না করায় চেয়ারম্যানের লালিত সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে ৭ জুলাই শনিবার যুবলীগ নেতা ও চেয়ারম্যান প্রার্থী বেলায়েত হোসেন ফয়সল ভূঁইয়াকে চর কাউনিয়া চাঁন মিয়া বাড়ীতে শালিস বৈঠক থেকে অস্ত্রের মুখে তুলে এনে পানিতে চুবিয়ে দফায় দফায় নির্যাতন চালিয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়। এই সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউপি মেম্বার নুরুল আমিন মিয়া, মহিলা মেম্বার ফারহান ইয়াছমিন, আবদুল মান্নান, শালিশদার সুমন, ভিকটিমের ভাই মো: ওয়ায়েবসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। তারা এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।