রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ   মহিপুর থানার
ডালবুগঞ্জ ও চরপাড়ার ভাড়ানির খালের উপর নির্মিত বহু পুরোনো কাঠের পুলটি
ইঞ্জিন চালিত ট্রলারের ধাক্কায় সোমবার বিকেলে ভেঙ্গে পড়ে যায় । এই কাঠের
পুল দিয়ে ডালবুগঞ্জ,মিঠাগঞ্জ ও মহিপুর ইউনিয়নের প্রায় ১০হাজার মানুষ
চলাচল করে। কাঠের পুলটি ভেঙ্গে যাওয়ায় এ পথে চলাচলকারী ৩ ইউনিয়নের
মানুষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। কাঠের পুল সংলগ্ন রসুলপুর সরকারী
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই কাঠের পুল দিয়ে স্কুলে যাতায়াত করে
। কাঠের পুল ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে ঝুঁকি নিয়ে ছোট্র ডিঙি নৌকায় এপার-ওপার
পার হচ্ছে কোমলমতি শিশু, নারী, বয়োবৃদ্ধসহ হাজারো মানুষ। স্থানীয়দের দাবী
ভেঙ্গে যাওয়া কাঠের পুলটি অপসারন করে এখানে একটি স্থায়ী গার্ডার ব্রীজ
নির্মানের ।

ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নেবর স্থায়ী বাসীন্দা মিজানুর রহমান বাচ্চু বলেন, সোমবার
বিকেলে একটি ইঞ্জিন চালিত ট্রলারের ধাক্কায় ব্রীজটি  দুমরে-মুচড়ে পড়ে যায়
। এমনভাবে ভেঙ্গে যায় যা সংস্কার করা সম্ভব নয়। এই কাঠের পুল দিয়ে শিশু
শিক্ষার্থীরা স্কুলে যাওয়া আসা করে । ব্রীজটি ভেঙ্গে পড়ায় যোগাযোগ
ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। চরম দূর্ভোগে তিন ইউনিয়নের মানুষ । ভাড়ানির
খালের উপর স্থায়ী ভাবে একটি গার্ডার ব্রীজ নির্মাণ করা খুবই জরুরী । তাই
সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের সূ-দৃষ্টি কামনা করছেন  তিনি ।

ডালবুগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম সিকদার বলেন, উপজেলা
নিবার্হী কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানানো হয়েছে । রসুলপুর সরকারী পাথমিক
বিদ্যালয়ের কোমলমতি ছাত্র /ছাত্রী পারাপার হয় এই কাঠের পুল দিয়ে। এছাড়া
ডালবুগঞ্জ ও মিঠাগঞ্জ ও মহিপুর এ তিন ইউনিয়নের কয়েক হাজার জনগণ আসা যাওয়া
করে। তাই জরুরী ভিত্তিতে এখানে একটি গার্ডার ব্রীজ প্রয়োজন ।

কলাপাড়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মাদ শহিদুল হক
জানান, আমি ঘটনাটি শুনেছি ওখানে এলজিইডি অথবা পি আই অফিসের মাধ্যমে
স্থায়ীভাবে ব্রীজের ব্যাবস্থা করা হবে ।