গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ গঙ্গাচড়ায় স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের কিসামত হাবু গ্রামে।

এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গজঘন্টা ইউনিয়নের কিসামত হাবু গ্রামের আবু তালেবের পুত্র মিলন মিয়ার সাথে একই ইউনিয়নের জয়দেব কৈপাড়া গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের কন্যা মল্লিকা বেগম (৩২) এর ১২ বছর আগে বিয়ে হয়। তারা দুজনেই ঢাকায় গার্মেন্টেসে কাজ করতো। সেখানেই তাদের বিয়ে হয়। গত ৭ মাস আগে তারা বাড়িতে আসে। তাদের সংসারে ২ সন্তান রয়েছে। এলাকাবাসীর অনেকে বলেন, মল্লিকা বেগম রাতে ষ্টোক করে মারা গেছে। তবে নিহতের বড় ভাই আসাদুল অভিযোগ করে বলেন, এর আগেও ১০/১২ বার তাদের বিচার সালিশ করা হয়েছে। আর তাদের ঢাকায় বিয়ে হলেও পারিবারিকভাবে এ বিয়ে মেনে নেয়নি মিলনের অভিভাবকরা। তার অভিযোগ মিলন তার বোনকে মেরে ফেলেছে। লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটেছে বলে এলাকাবাসী জানান। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন এ-সার্কেল রংপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু তৈয়ব মো.আরিফ হোসেন এবং গঙ্গাচড়া মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ সুশান্ত কুমার সরকার।

গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সুশান্ত কুমার সরকার বলেন, নিহতের শরীরের সুরতহাল রিপোর্টে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। সেই হেতু এটি একটি ইউডি মামলা হবে। ধারনা করা হচ্ছে সে স্টোক করে মারা গেছে। তিনি আরও বলেন যেহেতু নিহতের অভিভাবকরা অভিযোগ করছেন সেই হেতু লাশ পোষ্ট মর্টেমের জন্য পাঠানো হয়েছে।