মোস্তাফিজুর রহমান লালমনিরহাটপ্রতিনিধিঃজেলার হাতীবান্ধা উপজেলায় রবিবার   দিবাগত রাত ১১টায় হাতীবান্ধা উপজেলা বড়খাতা গ্রামের তহশিলদার পাড়া এলাকার হোসেন আলীর মেয়ে হাসি খাতুন (১৪) এর বাল্যবিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল আমিন সেখানে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক বাল্যবিয়ে ও ভুয়া ভলিয়ম বহি পাওয়ার অপরাধে কাজী আবুল হাসেমকে আটক করেন।এ সময় বিয়ে বন্ধ করে কনের বাবাকে ৪ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার রাতে হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল আমিন জানতে পারেন উপজেলার বড়খাতা গ্রামের তহশিলদারপাড়া এলাকার হোসেন আলীর মেয়ে হাসি খাতুনের সঙ্গে একই ইউপির পূর্ব সারডুবী গ্রামের রফিকুল মিয়ার ছেলে সাজু মিয়ার বাল্যবিয়ের আয়োজন চলছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে হাতীবান্ধা থানা পুলিশ পুলিশের সহায়তায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস্থলে পৌছে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।এ সময় বিয়েতে আসা বর ও কনের আত্মীয়-স্বজনরা পালিয়ে যায়। আটক হন কাজী ও কনের বাবা।ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় উপস্থিত ছিলেন বড়খাতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোস্তফা জামাল সোহেল, ইউপি সদস্য ও হাতীবান্ধা থানা পুলিশ।হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক সামিউল আমিন জানান, বাল্যবিবাহ নিবন্ধনের প্রমাণ হিসেবে কাজীর অফিস থেকে পাঁচটি ভলিউম বহি জব্দ করা হয়েছে। আটক কাজীর বিরুদ্ধে একটি নিয়মিত মামলা দায়ের করা হবে।