বন্দর প্রতিনিধি:সৎ দাদী বাড়িতে বেড়াতে এসে একাধিকবার ধর্ষনের শিকার হয়েছে (১৮) বছরের এক যুবতী নাতনী। গত ২৩ জুলাই বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে বন্দর উপজেলার তাজপুর এলাকায় এ ধর্ষনের ঘটনাটি ঘটে। এ ব্যাপারে ধর্ষিতা যুবতী বাদী হয়ে গত ২৫ জুলাই শনিবার রাতে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছে। যার মামলা নং- ৩০(৭)২০। জানা গেছে, গত ১৮ জুলাই গাজীপুর জেলার ১৮ বছরে এক যুবতী নারী তার দাদার ২য় স্ত্রী সিবানী রানী দাসের বাড়ি বন্দর উপজেলার তাজপুর এলাকায় বেড়াতে আসে। যুবতী নারী সৎ দাদীর বাড়িতে বেড়াতে আসার পর থেকে সৎদাদী সিবানী রানী দাস ও তার বোন রানী দাস উক্ত যুবতী নারীকে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার জন্য উক্ত যুবতীকে বিভিন্ন ভাবে চাপসৃষ্টি করে। এর ধারাবাহিকতায় গত ২১ জুলাই সৎদাদী ও তার বোন রানী দাস আমাকে উক্ত এলাকার ভজন চন্দ্র দাসের ছেলে সুখেন চন্দ্র দাসের সাথে যুবতীকে বিবাহ দেওয়ার জন্য প্রচন্ড চাপসৃষ্টি করে। এতে যুবতী রাজি না হওয়ায় তাকে বেদম পিটিয়ে আহত করে। পরে াামি পানি পান করে ঘুমিয়ে পরি। ঘুম ভাঙ্গার সাথে সাথে উল্লেখিত সৎদাদী ও তার বোন জানায় আমার বিয়ে হয়ে গেছে। গত ২৩ জুলাই ও ২৪ জুলাই ও ২৫ জুলাই রাতে লম্পট সুখেন চন্দ্র দাস উক্ত যুবতীকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূবর্ক একাধিকবার ধর্ষন করেছে। ২৬ জুলাই পুলিশ ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।