গত ১২ আগস্ট ইউটিউবে একটি অনুষ্ঠানে পাকিস্তানের ক্রিকেটের কিংবদন্তি ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কঠোর সমালোচনা করেছিলেন জাভেদ মিয়াঁদাদ। বলেছিলেন, ইমরানের হাত ধরেই পাকিস্তানের ক্রিকেট ধ্বংস হচ্ছে। কিন্তু সেই সমালোচনায় অটুট থাকতে পারলেন না মিয়াঁদাদ। মাত্র নয় দিন পরই সমালোচনার জন্য ইমরানের কাছে ক্ষমা চাইলেন মিয়াঁদাদ।

তিনি বলেন, আমার বক্তব্যের জন্য আমি ক্ষমা চাইছি, বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী ইমরানের কাছে। ১৯৯২ সালে প্রথমবারের মত ওয়ানডে বিশ্বকাপ জিতে পাকিস্তান। ওই দলের অধিনায়ক ছিলেন ইমরান। দলে ছিলেন মিয়াঁদাদও। দু’জনের দীর্ঘদিন একত্রে খেলার অভিজ্ঞতাও রয়েছে। তাই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কটাও বেশ। কিন্তু পাকিস্তানের বর্তমান ক্রিকেটের প্রেক্ষাপটে ইমরানের সমালোচনা করছিলেন মিয়াঁদাদ।

তিনি বলেছিলেন, ‘আমি তোমার (ইমরানের) অধিনায়ক ছিলাম। আমিই সেই মানুষ ছিলাম, যে তোমার জন্য তদবির করেছি। তুমি ভাবো তুমি ছাড়া আর কেউ ক্রিকেট বোঝে না। পিসিবিতে কারা আছে, তাদের নিয়ে আরেকবার ভাবা উচিত তোমার।’

ইমরানের বিরুদ্ধে সমালোচনার পর ক্ষমা চাইলেন ৬৩ বছর বয়সী মিয়াঁদাদ, ‘কাউকে আঘাত করে থাকলে আমার বক্তব্যের জন্য আমি ক্ষমা চাইছি, বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

চলমান ইংল্যান্ড সফরে প্রথম টেস্টে ৩ উইকেটে ম্যাচ হারে পাকিস্তান। জয়ের ভালো সম্ভাবনা জাগিয়েও ম্যাচটি হারতে হয় আজহার আলির দলকে। তাই পাকিস্তানের দলের উপর রাগ দেখাতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করেন বলে জানান মিয়াঁদাদ, ‘আসলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে পাকিস্তানের পারফরম্যান্সে আমি ক্ষুব্ধ ছিলাম। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ও বিশ্বজুড়ে পাকিস্তানের সমর্থকদের প্রতি আমার পূর্ণ শ্রদ্ধা আছে।’

তবে ভিতরের খবর হচ্ছে মিয়াঁদাদের ভাতিজা পাকিস্তানের সাবেক ব্যাটসম্যান ফয়সাল ইকবালকে ঘরোয়া একটি দলের কোচের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এরপরই নিজের ভোল পাল্টেছেন ‘বড়’ মিয়া।

ইমরানের নেতৃত্বে ৪৬ টেস্ট ও ১২০ ওয়ানডে খেলেছেন মিয়াঁদাদ।