এস এম মারুফ, ক্রাইম রিপোর্টারঃ ভারতে শারদীয়া দুর্গাপূজা উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা স্বরুপ ১৪৫০ মেট্রিক টন ইলিশ বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশের আগেই কোনো ঘোষনা ছাড়াই বেনাপোল বন্দর সহ দেশের বিভিন্ন স্থল দিয়ে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষনা করেছে ভারত। ফলে বেনাপোলের ওপার ভারতের পেট্টপোল বন্দরে প্রায় ১৫০টি পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক আটকা পড়েছে। আজ সোমবার (১৪ সেপ্টম্বর) সকালে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ৫০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ প্রবেশের পরপরই দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানিকারকদের সংগঠন। ভারতের শুল্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আজ সোমবার কিছু নীতিগত পরিবর্তন হওয়ার কারণে পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ হয়।

জানা যায়, ভারত থেকে ২৫০ মার্কিন ডলারে পেঁয়াজ আমদানি হয়ে আসছে। ভারতের নাসিকে বন্যার কারণে সেখানে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় পেঁয়াজের রপ্তানিকারকরা স্থানীয় বাজার দর হিসাবে ৭৫০ ডলারের নিচে বাংলাদেশে পেঁয়াজের রপ্তানি করবে না। এ কারণে তাঁরা পেঁয়াজের রপ্তানি সাময়িক বন্ধ করে দিয়েছে।

এদিকে, বিগত ২০১২ সালে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ইলিশ মাছ রফতানির ওপর নিশেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। তবে এরপর বাংলাদেশ সরকার একাধিকবার ভারত সরকারকে শুভেচ্ছা উপহার স্বরুপ ইলিশ মাছ দিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলেও বেনাপোল বন্দর দিয়ে ইলিশের প্রথম চালান বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রবেশ করবে ভারতে।

ইলিশ রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানটির বেনাপোলের নীলা এন্টারপ্রাইজ নামে সিএন্ডএফ এন্টারপ্রাইজ এর ম্যানেজার বলেন, প্রথম চালানে ১২ ম্যাট্রিক টন ইলিশ রফতানি করা হলো। রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো খুলনার জাহানাবাদ সি ফুড লিঃ। প্রতি কেজি ইলিশ মার্কিন ১০ ডলারে রফতানি করা হলো। যা বাংলাদেশী টাকায় ৮শত ৪০ টাকা।

এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল হাসান জানান ইলিশ বহনকারী গাড়ি বেনাপোল বন্দর এলাকায় অবস্থান করছে। সন্ধ্যার আগ দিয়ে চালানটি ভারতে প্রবেশ করবে।

পেঁয়াজ বন্ধের বিষয়ে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার আজিজুর রহমান বলেন, ভারত কোনো ঘোষণা ছাড়াই মূল্যবৃদ্ধির দাবিতে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে। পারস্পরিক বাণিজ্যে সমঝোতার বিকল্প নেই। তারা রপ্তানি বন্ধ না করে পেঁয়াজের আমাদানিকারকদের সময় বেঁধে দিতে পারতেন। হঠাৎ করে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া ঠিক হয়নি।