মনোয়ার বাবু(ঘোড়াঘাট) দিনাজপুর প্রতিনিধিঃআশি বছর বয়স!স্বামীকে হারিয়েছেন অনেক আগেই, ছেলে মেয়ে নেই! নেই নিজস্ব মাথা গোজার ঠাঁই। অন্যের দুয়ারে ঘুরে ঘুরে মিলে খাবার আবার কখনো কখনো মিলেও না। তখন না খেয়ে থাকতে হয় তাকে।দিনাজপুর ঘোড়াঘাটে এমনি একজন বৃদ্ধা নাম আমেনা বেগম(৮০) স্বামী মৃত- সমির উদ্দিন, সুরা মসজিদের পাশে সেকেন্দার দোকানদারের জমিতে জীর্ণশীর্ণ এক ঘরে থাকেন। বৃষ্টি এলে কষ্টের সীমা থাকে না সঙ্গে খাবারের সমস্যা তো আছেই।১৮ অক্টোবর (রবিবার) বেলা অনুমানিক সাড়ে এগারোটায় এই বয়োজ্যেষ্ঠ বৃদ্ধা ওসি আজিম উদ্দিন এর কাছে এসে তার সমস্যার কথা তুলে ধরেন। বলেন বাবা আমি গতকাল দুপুর বেলায় অন্যের বাড়িতে খেয়েছি এখন অবদি কিছু খাইনি! সঙ্গে সঙ্গে ওসি আজিম উদ্দিন খাবারের ব্যবস্থা করেন এবং ওসি সাহেবের অফিস রুমে বৃদ্ধাকে খেতে দেন। খাবার খেতে খেতে বয়োজ্যেষ্ঠ বৃদ্ধা বলেন আমি ব্রিটিশ আমলে আন্ডার মেট্রিক, ৪০/ ৬২   দুইই তার জানা।ভাগ্যের কাছে আমি আজ পরাস্ত। খাবার খাওয়া শেষে বৃদ্ধার আবদার! তার ঘরের চালা দিয়ে পানি পড়ে তাই পাঁচটা টিনের দরকার।

ওসি আজিম উদ্দিন বৃদ্ধার কথা শুনে,দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিক কে ফোন দেন এবং এমপি শিবলী সাদিক বৃদ্ধার ঘরের জন্য টিনের ব্যবস্থা করেন সঙ্গে ৩০ কেজি চাল এবং নগদ অর্থ প্রদান করেন।ঘরের টিন,চাল নগদ অর্থ পেয়ে বৃদ্ধা আমেনা বেগম এমপি সাহেব এবং ওসি সাহেবের জন্য অনেক দোয়া করেন।ঘোড়াঘাট থানা অফিসার ইনচার্জ জানান, বৃদ্ধা মা আমার কাছে আসলে তার সব কথা শুনে এমপি স্যার কে ফোন দেই এবং এমপি স্যার এসময় ঘরের টিন, ৩০ কেজি চাল এবং নগদ অর্থ সহযোগীতা করেন।পরবর্তীতে যাতে আর কারো কাছে হাত পাততে না হয় সেই জন্য তিনি সার্বিক সহযোগীতা করবেন বলেও জানান