রিপোর্টার এ্যাডভোকেট মো: ইসতিয়াক আহমেদ, শ্রীনগর (মুন্সিগঞ্জ) প্রতিনিধি: শ্রীনগরে এক অসহায় নারী (২০) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষকসহ ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাত ৩ টার দিকে উপজেলার পশ্চিম বেজগাঁও গ্রামের ফেরিঘাট এলাকায় এক ভাড়াটিয়ার ঘরে এই ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার ওই নারীর ৯৯৯ এ ফোন করলে শ্রীনগর থানা পুলিশ কৌশলে ধর্ষক জরিপ আলী (২৪) ও তার সহযোগী রফিকুল ইসলাম (২২) কে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। এ ঘটনায় শ্রীনগর থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং-২০। ধর্ষক জরিপ আলী কুড়িগ্রাম জেলার ভুরঙ্গামারি উপজেলার শিশব বাড়ির এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে। ধর্ষকের সহযোগী একই জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার আজমাতা (নাড়ীর ভিটা) এলাকার নুরুজ্জামান হোসেনের ছেলে। তারা শ্রীনগরে পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় ভাড়া করা বাড়িতে বসবাস করতো।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই নারী বেজগাঁও গ্রামের একটি বাড়িতে গৃহ-পরিচারিকার কাজ করতো। সে গত সোমবার ওই বাড়ির কাজে ইস্তফা দিয়ে উত্তরবঙ্গের বাড়িতে যাওয়ার জন্য বের হয়। কিন্তু রাত হয়ে যাওয়ায় সে শ্রীনগর থেকে উত্তবঙ্গের কোন যাত্রীবাহী বাস না পেয়ে তার এলাকার পূর্ব পরিচিত পশ্চিম বেজগাঁও গ্রামের বাসুদেবের বাড়ির ভাড়াটিয়া মর্জিনা বেগমের কাছে আশ্রয় নেয়। মঙ্গলবার রাত ৩ টার দিকে বাসুদেবের অপর ভাড়াটিয়া জরিপ আলী ওই নারীর ঘরে ঢুকে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় অটো চালক রফিকুল ইসলাম দরজার সামনে অবস্থান করে। ধর্ষণের পর ওই নারীকে ধর্ষকরা বেশ কিছুক্ষন ঘরের মধ্যে আটক করে রাখে। উপায় না দেখে সে ৯৯৯ এ ফোন দিলে শ্রীনগর থানা পুলিশ তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে। পরে পুলিশ কৌশলে ধর্ষক জরীপ ও সহযোগী রফিকুলকে আটক করে।

শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন বলেন, পুলিশ কৌশলে ধর্ষক ও তার সহায়তাকারীকে আটক করেছে। মামলা রেকর্ড করে তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।