তানোর(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর তানোরের কাঁমারগাঁ ইউপি’র আমিনবাজার এলাকায় মাত্র ২০০ মিটার রাস্তা প্রশস্ত ও পাকা না করায় কয়েক গ্রামের হাজারো মানুষের দুর্ভোগ যেন তাদের নিত্যসঙ্গী হয়ে উঠেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তানোরের কাঁমারগাঁ ইউপি’র মহাদেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিদ্যালয় সংলগ্ন সনাতন এলাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে এই রাস্তায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এসব মানুষকে যাতায়াত করতে হচ্ছে। কারণ কাদাময় পিচ্ছিল এই রাস্তায় যাতায়াতের সময় পা পিছলে পড়ে যেকোনো সময় ঘটতে পারে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এমনকি সেই আশঙ্কায় অনেক অভিভাবক ধর্মালম্বীদের সার্বজনীন দুর্গা মন্দিরে যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা দীর্ঘদিনেও প্রশস্ত ও পাকা না করায় কাঁমারগা, হাতিশাইল, মহাদেবপুর ও আব্দুল্লাহপুরসহ কয়েক গ্রামের সনাতন ধর্মালম্বীদের মন্দিরে যাতায়াত এবং স্কুলগামী শিক্ষক-কর্মচারী ও কোমলমতি শিশুদের বর্ষা মৌসুমে তাদের সন্তানদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। আবার রাস্তা না থাকায় মানুষের দুর্ভোগ চরমে উঠেছে। মাত্র তিন হাত প্রশস্ত রাস্তা তার মধ্যে আবার সেচের নালা করায় দুর্ভোগের মাত্রা আরো বেড়েছে।এবিষয়েমহাদেবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামসুদ্দিন মোল্লা ও সভাপতি তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, রাস্তাটি প্রশস্ত ও পাকাকরণ অতীব জরুরি, কিন্তু রাস্তার দুই পাশের জমির মালিক এক হাত করে রাস্তার দুই ধারে দুই হাত করে জমি দিলে রাস্তাটি প্রশস্ত ও পাকাকরণ করা যায়। তারা বলেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক, সাবেক চেয়ারম্যান এবং রাজশাহী শহরের হোটেল মুনের স্বত্বাধিকারী আব্দুল কাদের মৃধা ওই জমির মালিক তার কাছে থেকে রাস্তার জন্য জমি নেয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। তারা আরো বলেন, জমি পেলেই রাস্তাটি প্রশস্ত ও পাকারণের উদ্যোগ নেবেন তারা। সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে কাঁমারগাঁ ইউপি চেয়ারম্যান মসলেম উদ্দীন প্রামাণিক বলেন, জমি না থাকায় রাস্তার উন্নয়ন করা সম্ভব হচ্ছে না।