মাহফুজুর রহমান (সুনামগঞ্জ) থেকে :সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায়  রাতের আঁধারে আব্দুল হেকিম নামের এক তদরিদ্র কৃষকের প্রায় ৮ শতক জমির লাউ বাগন(লাউ গাছের চারা)কেটে বিনষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে কোন এক সময় তাহিরপুর উপজেলার সীমান্ত সংলগ্ন উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বিট পৈলনপুর গ্রামের।  এতে ওই কৃষকের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক টাকা ক্ষতি হয়েছে। দুর্বৃত্তদের এইরকম কান্ডে হতদরিদ্র কৃষক অাব্দুল হেকিম মানুষিকভাবে ভেঙে পরেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানাযায়, দরিদ্র কৃষক অাব্দুল হেকিম (৭৩) দেশীয় পদ্ধতিতে বাড়ির পাশে  ৮ শতক জায়গায় প্রায় ১০০ লাউ গাছের চারা প্রথম দফা রোপণ করার পর গত কয়েক দফা বন্যায় তা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তার প্রায় প্রথম দফায়  ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়। পরবর্তীতে নতুন স্বপ্ন বুকে লালন করে আবারও ১০০ লাউ গাছের চারা রোপন করেন। তার রোপণকৃত লাউ গাছ গুলোতে ফলন আসতে শুরু করেছিল। আর মাত্র ৭-৮ দিনের মধ্যে গাছে লাউ ধরার সম্ভাবনা ছিল । কিন্ত গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত  রাতে দুর্বৃত্তরা ওই কৃষকের ১০০ লাউ গাছের মধ্যে ৫০ টি  ফলন্ত লাউ গাছ গুড়া থেকে কেটে ফেলে। হতদরিদ্র আব্দুল হেকিম জানান, আজ রাতে আমার ৮ শতক জমির  কষ্টের ফসল ৫০টি ফলন্ত কেটে  ফেলে।  এতে বন্যায় নষ্ট হয় ও গাছ কেটে ফেলায় আমরা ৫০/৬০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়। আমার  গ্রমের কিছু মানুষের সাথে আমার মামলা মোকাদ্দমা হিয়ে বিরুদ্ধ আছে।ধারণা  আমার প্রতিপক্ষের লোজ জনেই আমাকে কিছু করতে না পেরে রাতের আমার ক্ষেতের ৫০টি লাউ গাছের চারা আঁধারে কেটে কেটে দিয়েছে।  সকালে যাখন সূর্য উঠার পরা সূর্যের আলোর তাপে সব লাউ গাছ মরে যাচ্ছে তখন আমার লাউ ক্ষেতে গিয়ে দেখতে পাই সব লাউ গাছের গোড়া থেক কেটে ফেলা হয়েছে। পুরানঘাট গ্রামের এনাম উদ্দিন তালুকদার বলেন, এটি একটি নেক্কার জনক ঘটনা। যে বা যারাই এই গরীব কৃষকের লাউ ক্ষত কেটে দিয়েছে তা খুব জঘন্যতম কাজ করেছ। তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার  বলেন, কেউ অভিযোগ দায়ের করেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।