কাজী ওহিদ, গোপালগঞ্জ থেকেঃ- গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ বিচারক সহ মোট ৭ জন আহত হয়েছেন। পুলিশ ও সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ১০ নভেম্বর মঙ্গলবার গোপালগঞ্জ বিচার বিভাগের বিজ্ঞ বিচারকদের দুপুরের খাবার শেষে নির্ধারিত সরকারি মাইক্রোবাসযোগে তাদেরকে নিয়ে পুনরায় কর্মস্থলে ফেরার পথে জ্বালানি তেল ফুরিয়ে গেলে কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মাইক্রোবাস চালক শিবচন্দ্র সরকার দোলা পেট্রলপাম্প থেকে জ্বালানী তেল সংগ্রহ করে বিশ্বরোড দিয়ে গোপালগঞ্জ জেলা আদালত কার্যালয়ে ফেরার পথে মান্দারতলা টার্নিং পয়েন্টে পৌঁছালে দুপুর আনুমানিক ২ টা ৪৫ মিনিটের দিকে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগামীর বাস (বলেশ্বর, ঢাকা মেট্রো ব—১১—৫৫৩৮) বিচারকদের বহনকারী মাইক্রোবাসটিকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে গাড়িতে থাকা বিজ্ঞ ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনালের বিচারক (যুগ্ম জেলা জজ) মোঃ ইউসুফ হোসেন, সিনিয়র সহকারী জজ (সদর আদালত) এইচ.এম. কবীর হোসেন, সহকারী জজ (টুঙ্গিপাড়া আদালত) মোঃ নাজমুল কবীর, চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ হুমায়ুন কবীর, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাঞ্চন কুমার কুন্ডু, বিচারকদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত জেলা পুলিশের কনস্টেবল তপন দে, মাইক্রোবাস চালক শিব চন্দ্র সরকার (শিবু) সহ মোট ৭ জন গুরুত্বর আহত হন। পরে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদেরকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে মাইক্রোবাস চালক শিব চন্দ্র সরকারের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় অ্যাম্বুলেন্স যোগে তাকে দ্রুত রাজধানীর আগারগাঁও নিউরো সাইন্স হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। এছাড়া মাইক্রোবাসে থাকা বিচারক হুমায়ুন কবীর ও বিচারক কাঞ্চন কুমার কুন্ডুকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাদেরকে বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের নাজির জাকির হোসেন উকিল। আহত অন্যদেরকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ঘাতক বাসটিকে আটক করেছে বলে জানান, সদর থানার এসআই মোঃ রুস্তম আলী। দুপুরে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনার এ খবর পেয়ে গোপালগঞ্জের বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ অমিত কুমার দে, বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) আতোয়ার রহমান, চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সাহাদাত হোসেন ভূইয়া, জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস—চেয়ারম্যান নিরুন্নাহার ইউসুফ, জেলা বিচার বিভাগের অন্যান্য বিচারকগণ, আইনজীবীগণ সহ গণমাধ্যমকর্মীরা হাসপাতালে ছুটে যান। মঙ্গলবার দুপুরে সংঘটিত মর্মান্তিক এ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সকলের দ্রুত সুস্থতা কামনায় দোয়া চেয়েছেন গোপালগঞ্জ বিচার বিভাগ।