তানোর রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে  এনজিও ব্র্যাকের শিক্ষা প্রোগ্রামের কর্মকর্তা নিশিত কুমারের বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেস্টার অভিযোগ উঠেছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসীর মাঝে চরম অসন্তোষের সৃস্টি হয়েছে।এদিকে ব্র্যাকের মুন্ডুমালা (সাদিপুর) শাখার শাখা ব্যবস্থাপক ম্যানেজার আশরাফুল ইসলাম বড় অঙ্কের আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করে ভিন্নখাতে প্রভাবিত  ও ধাঁমাচাঁপা দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে বলে এলাকায় ব্যাপক আলোচনা রয়েছে। স্থানীয়রা জানান, তানোর ব্র্যাক শিক্ষা প্রোগ্রামের কর্মকর্তা নিশিত কুমার পরিচয় গোপণ করেবাধাইড় ইউপির গাল্লা এলাকার মুসলিম সম্প্রদায়েরজনৈক ব্যক্তির কন্যার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তাকে নিয়ে মুন্ডুমালা (সাদিপুর) শাখা ব্যবস্থাপকের সহায়তায় তারা নিয়মিত সেখানে সময় কাটাতেন।প্রত্যক্ষদর্শী সুত্র জানায়, চলতি বছরের ১০ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে সময় কাটাতে এসে অফিসের ছাদে আপত্তিকর অবস্থায় তারা এলাকাবাসীর কাছে ধরা পড়ে। কিন্ত্ত শাখা ব্যবস্থাপক বিচারের কথা বলে ছেলে-মেয়ে উভয়কেই নিজের জিম্মায় নিয়ে গোপণে ছেলেকে ছেড়ে দিয়ে মেয়েকে তার পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে।এদিকে ছেলেকে ছেড়ে দেয়ার খবর জানাজানি হলে এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। তারা লম্পট নিশিতের পাশাপাশি সহায়তাকারী শাখা ব্যবস্থাপক আশরাফুল ইসলামেরও দৃস্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করেছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে ব্র্যাক মুন্ডুমালা সাদিপুর শাখা ব্যবস্থাপক আশরাফুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিশিত কুমার তার অফিসের কেউ না সে তানোর শাখার আন্ডারে। তিনি বলেন, ছোট ঘটনা ঘটেছিল তায় মেয়েকে তার পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছি এবং নিশিতের বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে অবগত করা হয়েছে। এবিষয়ে বক্তব্য নিতে মুঠোফোনে ক্ষুদেবার্তা দিয়ে যোগাযোগ করা হলেও নিশিত কুমারের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এবিষয়ে ব্র্যাক তানোর শাখার শাখা ব্যবস্থাপক বলেন, ঘটনা তার অফিসে ঘটেনি, তিনি বলেন, তার বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। তিনি বলেন, এর দায় সাদিপুর শাখার ম্যানেজার এড়াতে পারে না