নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাংচুরের ঘটনায় হেফাজতে ইসলামের মামুনুল হক ও জোনায়েদ বাবুনগরীকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)-সিপিবি(এম) এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডা. এম. এ. সামাদ।

আজ ৬ ডিসেম্বর ২০২০ রবিবার সকাল ১১ টায় কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাংচুরের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)’র সাধারণ সম্পাদক, গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য’র শীর্ষ নেতা, সদ্য সমাপ্ত ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মাছ মার্কার মেয়র প্রার্থী কমরেড ডা. এম. এ. সামাদ বলেন, “সরকার এতদিন দুধ-কলা দিয়ে কালসাপ লালন করেছে। ক্ষমতা ও ভোটের স্বার্থে কট্টর সাম্প্রদায়িকতাকে পৃষ্ঠপোষকতা, পাঠ্যপুস্তুকের সিলেবাস পরিবর্তন, বিভিন্ন রকম অর্থনৈতিক সুবিধা প্রদান করে আসছে। সরকার অনৈতিকভাবে জনগণের সম্পদ নিজস্বার্থ হাসিলে এই গোষ্ঠীকে দিয়ে আসছে। ফলে সাম্প্রদায়িক শক্তি আজ এ ধরণের অপতৎপরতা ও চরম ধৃষ্টতা দেখাতে পারছে।”

তিনি বলেন, “মৌলবাদী শক্তিকে মাঠে নামানো এবং নিয়ন্ত্রণে রাখার যে কৌশল দীর্ঘদিন ধরে সরকার অবলম্বন করছে তা দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য-সংস্কৃতিকে ধ্বংস করে সাম্প্রদায়িক শক্তিকেই পুষ্ট করেছে। যার বিষময় ফল দেশবাসী ইতোমধ্যেই প্রত্যক্ষ করছে। গণমানুষের অধিকারহরণ ও সাম্প্রদায়িক শক্তির পৃষ্ঠপোষকতা একই সঙ্গে করার প্রেক্ষিতে দেশ আজ মৌলবাদীদের আস্ফালন ও হুমকির মুখে এসে দাঁড়িয়েছে।”

তিনি সাম্প্রদায়িক উম্মাদনা মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য প্রগতিশীলদের প্রতি আহ্বান জানান। পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুর ও বিরোধীতাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)’র কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড বিজ্ঞানী সামছুল হক সরকার, কমরেড বায়েজিদ, কমরেড আলাউদ্দিন, কমরেড মোস্তফা আল খালিদ, কমরেড রকিবুল ইসলাম, কমরেড রাসেল, কমরেড বিন ইয়ামিন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক হারুন চৌধুরী, সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সামছুল আলম সহ পার্টির বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ।