মনিরুজ্জামান লেবু নীলফামারী প্রতিনিধিঃ রেলপথ মন্ত্রী এ্যাডভোকেট নূরুল ইসলাম সুজন জানিয়েছেন ১৭ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে এগারটায় চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রুটে মালবাহী ট্রেন চলাচল আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই রুটের উদ্বোধন করবেন তারা।অাজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলফামারী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আন্তর্জাতিক এই রুটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি মুলক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা জানান তিনি। মন্ত্রী জানান আগামী বছরের ২৬ মার্চ একই রুটে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হবে। শুধু চিলাহাটি-হলদীবাড়ি নয় দর্শণা, বেনাপোল, রহমানপুর, বিরল ও রাধিকাপুর রুট দিয়েও ভারতে ট্রেন চলাচলের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সৌহার্দ্য মুলক সম্পর্ক আরো গভীর হবে। তিনি অারো বলেন, যমুনা নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতুর পাশে বঙ্গবন্ধু রেলসেতু গত ২৯ নভেম্বর উদ্বোধন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০২৪ সালের আগষ্ট মাসের আগেই এটি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত হবে। এরফলে রেলসেবার সম্প্রসারণ এবং সাধারণ মানুষ ট্রেনে যাতায়াত করতে পারবেন আরো সহজে।এই সেতুর উপর দিয়ে মিটার গেজ লাইনে ১০০কিলোমিটার বেগে ও ব্রডগেজ লাইনে ১২০ কিলোমিটার বেগে ট্রেন চলাচল করতে পারবে।

প্রস্তুতিসভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী। এসময় নীলফামারী-০১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, নীলফামারী-০৪ আসনের সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলীম, নীলফামারী-০১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য নুর কুতুবুল আলম চৌধুরী, রেলপথ মন্ত্রনালয়ের যুগ্মসচিব আতিকুর রহমান, রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মিহির কান্তি গুহ, চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রহিম, নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ সহ অারো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। রেল মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেন, ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর থেকে বন্ধ হয়ে যায় চিলাহাটি-হলদীবাড়ি রুটে ট্রেন চলাচল। পরিত্যক্ত ছিলোএতদিন।
বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই পথে আবারো ট্রেন চলাচল সম্ভব হচ্ছে।