চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ“পাহাড়ি ঘেষা এলাকা হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা” শীতের রাজত্ব থাকে বেশি। ৪-৫ দিন আগে মৃদু শৈত্য প্রবাহ বয়ে গেছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দেখা যায়নি রোদের। ১-২দিন ধরে সারাদিন রোদের রাজত্ব শেষে সন্ধ্যা নামতেই বদলে যাচ্ছে তাপমাত্রা। সন্ধ্যার পরেই কড়া নাড়ছে শীত। শীত মোকাবিলায় শুরু হয়ে গেছে গরম কাপড় বিক্রির ধুম। চুনারুঘাট পৌরশহর ও উপজেলার বিভিন্ন বিপণি বিতানসহ ফুটপাতের দোকানগুলোতে জমছে শীতের কাপড় কেনাবেচার ধুম। ভোরের কুয়াশার সঙ্গে সঙ্গে শীত উপেক্ষা না করে নিম্নবিত্তরা শীতের কাপড় কিনতে পৌরশহরে লন্ডনি মার্কেটে ভিড় করছেন।

এখানে বিক্রেতারা শীতের কাপড়ের পসরা নিয়ে বসেছে। এই ফুটপাতের মোড়কে বলা হয় লন্ডনী মার্কেট। পৌর শহরের লন্ডনী মার্কেট নামে বেশ পরিচিত। ভোরের কুয়াশার সঙ্গে সঙ্গে শীতের কাপড় ক্রয় করতে দেখা গেছে নিম্নবিত্তের। ছোট-বাচ্চাদের কাপড় থেকে শুরু করে ইয়াং ছেলে -মেয়েদের কাপড়সহ বৃদ্ধের কম দামে কাপড় বিক্রি করা হচ্ছে।লন্ডনি মার্কেটে মেয়েদের সোয়েটারের দাম মানভেদে ১০০ থেকে ৪০০ টাকা, ছেলেদের সোয়েটার ৫০ থেকে ৪০০ টাকা, ছেলেদের জ্যাকেট ১৫০ থেকে ৪০০ টাকা, বাচ্চাদের সোয়েটার ৩০ থেকে ৫০০ টাকা, হাতের মোজা ৩০ থেকে ১৫০ টাকা।

এ ছাড়া এখানে মানভেদে সাধারণ টুপি ৪০ থেকে ১০০ টাকা ও মাফলার ৫০ থেকে ২৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। শীতের কাপড়ের পাশাপাশি বিক্রি বেড়েছে কম্বলের। লন্ডনি মার্কেটের কাপড় বিক্রেতা মোঃ চেরাগ আলী, ইদ্রিস আলী, রিপন মিয়া বলেন, শীত আসার আগে এই দোকানে শার্ট-প্যান্ট ও টি-শার্ট বিক্রি হতো। কিন্তু শীতের সময় আমরা গরম কাপড় বিক্রি শুরু করি। দামে সস্তা হওয়ায় নিম্নবিত্তের ক্রেতাদের কাছে এই কাপড়ের চাহিদা বেশি। এছাড়াও বিভিন্ন বিপণী বিতানে নতুন কাপড়ের পাশাপাশি ফুটপাতে লন্ডনি মার্কেটে বিক্রি হচ্ছে পুরোনো শীতের কাপড়।

ফুটপাতে লন্ডনি মার্কেটে ক্রেতাদের পছন্দের ওপর ভিত্তি করে বিক্রেতারা সাজিয়েছেন পসরা। উলের তৈরি সোয়েটার, চাদর, জ্যাকেট, ব্লেজার, মাফলার, টুপি কিংবা হাতমোজা সবই মিলছে এখানে। বিক্রিও চলছে দেদারসে। আর এক সপ্তাহ ধরে জমে উঠেছে খুচরা বিক্রির বাজার। প্রতিদিনই বাড়ছে ক্রেতার সংখ্যা।