মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু,     নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরীকে বান্দরবান জেলা আওয়ামীলীগের নব-গঠিত কার্যনির্বাহি কমিটির সদস্য মনোনীত করায় বীরোচিত সংবর্ধনা দিয়েছে উপজেলা আওয়ামীলীগ ও  সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। শনিবার (২০ ডিসেম্বার) দুপুর ১ টায় বান্দরবান থেকে গাড়ী যোগে বিকেল সাড়ে ৩টায় রামু রাবার বাগান এলাকায় পৌঁছেন তিনি।সেখানে মটর সাইকেল ও গাড়ী বহর নিয়ে পৌঁছালে তাকে অভ্যর্থনা জানান উপজেলা আওয়ামীলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমীকলীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দসহ উপজেলার বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। রামু রাবার বাগান থেকে বিশাল মোটর সাইকেলের বহর নিয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর উপজেলায় পৌঁছেন আওয়ামিলীগের পরিক্ষিত এ নেতা। নিজ এলাকায় উপজেলার আর্দশগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে ফুলের পাপড়িঁতে ভরে যায় নবাগত জেলার এই নেতা পুরো শরীর।সেখান থেকে দলীয় কার্যালয় উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের  নেতা-কর্মীদের সংবর্ধনায় সংবর্ধিত হন। উপজেলায় নেওয়ার পথে মোড়ে মোড়ে হাত উঁচিয়ে ও ফুল ছিটিয়ে অভ্যর্থনা জানান হাজারো মানুষ। তসলিম  ইকবাল চৌধুরীর এ সংবর্ধনাকে ঘিরে মিছিলে মিছিলে মুখর হয়ে ওঠে উপজেলাবাসী। সবার মুখে উচ্চারিত হচ্ছিল- ‘তৃণমূল থেকে বেড়ে উঠা সেই তসলিমকে মূল্যায়ন করেছেন বীর বাহাদুর এমপি। বীর বাহাদুর এমপি ইজ দ্য গ্রেট’ পলিটিক্যাল ম্যান। তসলিম ইকবাল চৌধুরীর সংবর্ধনার আয়োজন নিয়ে হাজী এম,এ কালাম সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুমিনুল আলম মুমু এই প্রতিবেদককে বলেন, দীর্ঘ মেয়াদে এই নেতা সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি ছিলেন। তিনি আওয়ামীলীগ পরিবারের একজন দক্ষ সংগঠক। উপজেলা আওয়ামীলীগের নির্বাচিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের নির্বাচিত সাবেক সফল চেয়ারম্যানও ছিলেন। তিনি পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি,র আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত সবার কাছে। এক কথায় তিনি ক্লিন ইমেজে নেতা। তাঁর নেতৃত্বে এবং পরার্মশে উপজেলা ছাত্রলীগ সু-সংগঠিত। তসলিম ইকবাল চৌধুরীর জন্য যেমন সংগঠন গর্বিত। তেমনি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মানুষ হিসেবে উপজেলাবাসী গর্বিত। এখন তসলিম ভাই তসলিম ভাই স্লোগানে উচ্ছ্বসিত সদর নাইক্ষ্যংছড়ি।