মোঃ জয়নাল আবেদীন টুক্কু,  বান্দরবান, নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুসারে আগামী ২২ মার্চ থেকে ৪ জুন পর্যন্ত ৬ ধাপে ৪ হাজার ২৭৫ টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এ ঘোষণায় ইতোমধ্যে বাইশারীত  নির্বাচনী হাওয়া শুরু হয়েছে। এর ধারাবাহিকতায়  নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান, মেম্বার  ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার  প্রার্থীগণ বিভিন্ন জায়গায় দোয়া-সমর্থন চেয়ে নিজের প্রার্থীতা জানান দিয়েছেন। এর আগে, নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে অংশগ্রহণে ইচ্ছুক প্রার্থীদের অনেকেই করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী হিসেবে চাল, ডাল, আলু, তেল, পেয়াঁজ, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক, সাবান বিতরণ করে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বর্তমানে দল বেধে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কুশল বিনিময় এবং খোঁজ-খবর নিয়ে গণসংযোগ চালাচ্ছেন চেয়ারম্যান, মেম্বার ও সংরক্ষিত মহিলা পদের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। প্রচারণা চলছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক এবং মোবাইলে। এদিকে, তফসিল ঘোষণার আগে থেকেই বাইশারী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে বিরাজ করছে নির্বাচনী আমেজ। নির্বাচন নিয়ে আলোচনা চলছে ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার মোড়ের চায়ের দোকান, মুদি দোকানসহ বিভিন্ন আড্ডাস্থলে। এছাড়াও আলোচনায় পিছিয়ে নেই পরিবারের লোকজনও। ওইসব আলোচনায় চেয়ারম্যান  ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও পুুুরুষ সদস্য পদের সম্ভাব্য প্রার্থীদের চাইতে প্রাধান্য পাচ্ছে বড় দুই রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন নিয়ে। বর্তমানে বাইশারী ও আশপাশের এলাকা  জুড়ে আলোচনা একটাই, বাইশারী ইউপি নির্বাচনে বড় দুই দল থেকে কে কে হচ্ছেন নৌকার আর ধানের শীষের প্রার্থী?’ তাছাড়া আলোচনা হচ্ছে, সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মাঝে কে কেমন? কার জনপ্রিয়তা বেশী? কাকে মনোনয়ন দিলে ভাল হবে? কাকে দেওয়া উচিত? কার মনোনয়নে জয়ের সম্ভাবনা বেশী? ইত্যাদি বিষয় নিয়ে। তবে, দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা তাকিয়ে আছেন উপজেলা ও জেলার নেতাদের দিকে। অধীর আগ্রহে তারা অপেক্ষায় আছেন কেন্দ্রীয় ঘোষণার জন্য। অনেকেই আবার কেন্দ্রীয় বা উপজেলা ও জেলা নেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে লবিং করছেন। নিজের অবস্থান তুলে ধরে তাদের মনজয়ের চেষ্টা করছেন দলীয় মনোনয়নের জন্যে। বাইশারী ইউনিয়নে স্থানীয়ভাবে আওয়ামিলীগের  দলীয় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান  প্রার্থী হিসাবে আলোচনায় আছেন- সদ্য ঘোষিত জেলা আওয়ামী লীগের নেতা ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আলম কোম্পানি,আর ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর। অপরদিকেবিএনপি, জামায়েত ইসলামি তথা ২০ দলীয় জোট থেকে  বিএনপির সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মনুয়ারুল হক মনু ও যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দীনের নাম  আলোচনায় রয়েছেন। নির্বাচনের বিষয়ে চেয়ারম্যান আলম কোম্পানি এ প্রতিবেদককে বলেন,মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুর মহোদয়ের সুদৃষ্টিতে বাইশারীতে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে এবং অনেক কাজ চলমান রয়েছে। তাই অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে তিনি সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন। এছাড়াও তিনি আরো বলেন, জনপ্রিয়তাসহ সকল দিক বিবেচনা করলে দলীয় মনোনয়ন পাবার যোগ্য আমি। আর এক প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর বলেন,আমি এবার দলের মনোনয়ন পাবার পালা। গত বারও আমি দলীয় নেতা কর্মীদের সিন্ধান্ত মতে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়ে ছিলাম। এবার দল আমাকে মনোনয়ন দিতে ভুল করবেনা তাই আমি আশাবাদী।  ইউনিয়ন বিএনপির  সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান  মনয়ারুল হক মনুু জানান, সুুুুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশে তৈরী হলে অবস্থা বুঝে এবং দলীয় সিন্ধান্ত অনুযায়ী হবে। বিএনপির তরুন আর এক  প্রার্থী ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি জসিম উদ্দিন জানান, দলীয় মনোনয়ন পেলে তিনি এবার নির্বাচন করার জন্য পারিবারিক ভাবে সিন্ধান্ত নিয়েছেন তাই প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইউপি নির্বাচনের বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশ্বস্থ  একটি  সূত্রে জানা গেছে সংঘটনের নিয়ম অনুযায়ী নেতা কর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে এবং যাচাই-বাছাই করে সিন্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। সিন্ধান্ত অনুযায়ী  বাইশারী ইউপি  নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ের জন্য ৩ জনের নামের তালিকা উপজেলা আওয়ামী লীগের মাধ্যমে জেলায় পাঠানো হবে। তবে স্থানীয় নেতাদের মতে  অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বর্তমান চেয়ারম্যান আলম  কোম্পানি প্রাধান্য পাবে বলে তাদের ধারণা। অপরদিকে একই বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি  উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলিম বাহাদুর বলেন, তপশিল ঘোষণার পরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রীয় গাইডলাইন অনুসারে প্রার্থী তালিকা প্রনয়ন করে জেলায় পাঠানো হবে। এর পর চুড়ান্ত করা হবে দলীয় মনোনয়নের বিষয়টি।