গোবিন্দগঞ্জ ( গাইবান্ধা) প্রতিনিধি ঃগাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় অবৈধভাবে গড়ে ওঠা ১২টি ইটভাটার মালিককে ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা ও একটি ইটভাটা গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বুধবার (১৩ জানুয়ারি) দিনব্যাপী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত ১৩টি ইটভাটায় রংপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু হাসানের নেতৃত্বে এবং উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশিদ ও সহকারী পরিচালক ইউসুফ আলী ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এসময় আর.আর.এল ব্রিকস ভাটায় অভিযান চালিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে। এছাড়া বালুয়া ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতিসহ মহাসড়ক সংলগ্ন ও মহিমাগঞ্জ রোডে অবিস্থত ১২টি ইটভাটায় ৪৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

জরিমানাকৃত ভাটাগুলো হলো- ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি জাহিদুল ইসলামের (জয়দালী) কালিকাপুরের এমজেবি ভাটায় ৮ লাখ; একই স্থানের সোহাগের এসআরবিতে ৪ লাখ চক শিবপুর (৪১ মাইল) আতিক চেয়ারম্যানের এপিএস ভাটায় সাড়ে ৩ লাখ; পৌরসভার আবাসিক এলাকা বোয়ালিয়ায় অবস্থিত রায়হানের মেসার্স রাবেয়া ব্রিকসে সাড়ে ৩ লাখ; পৌরসভার আমেনা ভিটায় আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বলের এমইউবি ভাটায় ৩ লাখ, পৌরসভার মহাসড়ক সংলগ্ন বোয়ালিয়ায় মমতাজ বেগম শিল্পীর (আজাদের ভাটা) এসআরএইচ ভাটায় ৩ লাখসহ আরো ৫টি ভাটায় ১৫ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু হাসান বলেন, লোকালয়ে এবং কৃষিজ জমিতে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ব্যাতীত লাইসেন্স বিহীন ইটভাটা স্থাপনের নিয়ম নেই। কিন্তু অভিযানে দেখা যায় অধিকাংশ ইঁট ভাটা মালিকরা পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র না নিয়ে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে লাইসেন্স বিহীন ইটভাটা স্থাপন করেছে। সরকারি নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে এসকল লাইসেন্স বিহীন সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে ভাটা পরিচালনা করার দায়ে ১২টি ভাটা মালিকদের নিকট হতে সংশ্লিষ্ট আইনে জরিমানা আদায় করা হয়েছে এবং ১টি ইট ভাটা গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

রংপুর র‌্যাব-১৩ এর সদস্যরা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি একেএম মেহেদী হাসান।