বাংলাদেশের সাবেক চার প্রধান বিচারপতি। এদের মধ্যে আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম ও সাহাবুদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতি ও হাবিবুর রহমান ও লতিফুর রহমান তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নেতৃত্ব দেন।

এই আমার দেশ ডেস্ক

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে ২২ জন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন, তাদের মধ্যে দুজন দেশের রাষ্ট্রপতি হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন হয়েছেন আবার দুবার। দুজন নেতৃত্ব দিয়েছেন নির্বাচনকালীন দুটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের। দুজন মেয়াদ শেষের আগে পদত্যাগ করেছেন। এদের একজন আবার দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন। তবে তিনি দেশের বাইরে থাকায় সাজা ভোগ করতে হচ্ছে না।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে ২২ জন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন।

এই প্রধান বিচারপতিদের মধ্যে দুজন বাংলাদেশে রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। একজন আবার এই পদে ছিলেন দুই মেয়াদে। এদের একজন আবার নির্বাচন আয়োজনের জন্য রাষ্ট্রপতি হয়ে ভোট শেষে আবার পদে ফিরে যান। পাঁচ বছর পর তিনি আবার রাষ্ট্রপতি হন।

দুজন প্রধান বিচারপতি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হিসেবে দুটি জাতীয় নির্বাচনের সময় দায়িত্ব পালন করেছেন।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে ২২ জন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন।
বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে ২২ জন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন।

দুজন প্রধান বিচারপতি নিজে থেকে পদত্যাগ করেছেন, যাদের একজন সাবেক প্রধান বিচারপতি দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়েছেন। তিনি পদে থাকার সময় দেশের বাইরে ছুটিতে গিয়ে আর ফেরেননি। পরে তার অনুপস্থিতিতেই বিচারের রায় হয়।

৬৭ বছর পূর্ণ হওয়া দ্বাদশ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। একই দিন বৃহস্পতিবার নতুন প্রধান বিচারপতি হিসেবে হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নাম ঘোষণা করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

নতুন প্রধান বিচারপতি শপথ নেবেন আজ শুক্রবার।

মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে জন্ম নেয়া বাংলাদেশের প্রথম প্রধান বিচারপতি শপথ নেন পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর আত্মসমর্পণের ঠিক এক বছর পর।

তিনি ছিলেন আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম। তিনি ১৯৭২-এর ১৬ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭৫ সালের ৫ নভেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছেন।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যে ২২ জন প্রধান বিচারপতি হয়েছেন।

তিনিই প্রথম প্রধান বিচারপতি, যিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের ষষ্ঠ রাষ্ট্রপতি হিসেবে ১৯৭৫-এর ৬ নভেম্বর থেকে ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

দ্বিতীয় প্রধান বিচারপতি হন সৈয়দ এ বি মাহমুদ হোসেন ১৯৭৫ সালের ১৮ নভেম্বর থেকে ১৯৭৮ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত।

তৃতীয় প্রধান বিচারপতি কামালউদ্দিন হোসেন দায়িত্বে ছিলেন ১৯৭৮-এর ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৯৮২ সালের ১১ এপ্রিল পর্যন্ত।

চতুর্থ প্রধান বিচারপতি ফজলে কাদেরী মোহাম্মদ আবদুল মুনিম সবচেয়ে বেশি সময় দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি প্রধান বিচারপতি হন ১৯৮২ সালের ১২ এপ্রিল। পদে ছিলেন ১৯৮৯ সালের ৩০ নভেম্বর। অর্থাৎ সাড়ে ৭ বছর ৭ মাস।

পঞ্চম প্রধান বিচারপতি বদরুল হায়দার চৌধুরী ছিলেন ১৯৮৯ সালের ১ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। অর্থাৎ তার মেয়াদ ছিল কেবল এক মাস।

ষষ্ঠ প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদ দায়িত্বে ছিলেন ১৯৯০-এর ১ জানুয়ারি থেকে ১৯৯৫ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর সেনা শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পতনের পর তিনি রাষ্ট্রপ্রধান হয়ে ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনের আয়োজন করেন। নির্বাচন শেষে আবার তিনি তার আগের পদে ফিরে যান। তার জন্য বাংলাদেশের সংবিধানও সংশোধন করতে হয়েছিল।

তার নেতৃত্বে নির্বাচনে জিতে বিএনপি ৯ বছর পর সরকারে ফেরে।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে সাহাবুদ্দিন আহমেদকে আবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করা হয়। সে সময় তিনি পাঁচ বছর মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেন।

সপ্তম প্রধান বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থায় প্রধান উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করা প্রথম ব্যক্তি।

তিনি ১৯৯৫-এর ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৯৯৫ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত প্রধান বিচারপতি ছিলেন। ১৯৯৬ সালের জুনের জাতীয় নির্বাচনে তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হন। ওই নির্বাচনে ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ সরকারে ফেরে।

দেশের অষ্টম প্রধান বিচারপতি এ টি এম আফজাল দায়িত্বে ছিলেন ১৯৯৫-এর ১ মে থেকে ১৯৯৯ সালের ৩১ মে পর্যন্ত।

নবম প্রধান বিচারপতি মোস্তফা কামাল দায়িত্বে ছিলেন ১৯৯৯ সালের ১ জুন থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

দশম বিচারপতি লতিফুর রহমান ছিলেন ২০০০-এর ১ জানুয়ারি থেকে ২০০১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

তিনি বাংলাদেশের দ্বিতীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন। ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনের সময় তিনি এই দায়িত্বে ছিলেন।

তবে ২০০৬ সালে আরেক প্রধান বিচারপতি কে এম হাসানের প্রধান উপদেষ্টা হতে যাওয়াকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক গোলযোগে ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি জারি হয় জরুরি অবস্থা।

সে সময় বিধান ছিল, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান হবেন সবশেষ দায়িত্ব পালন করা প্রধান বিচারপতি। কিন্তু কে এম হাসান এককালে বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন বলে আওয়ামী লীগ তাকে মেনে নিতে রাজি ছিল না।

২০০৮ সালের ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনের আয়োজন করে জরুরি অবস্থায় ক্ষমতা নেয়া তত্ত্বাবধায়ক সরকার। আট বছর পর ক্ষমতায় ফেরে আওয়ামী লীগ।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর উচ্চ আদালতের রায়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাই বাতিল হয়। এর ফলে প্রধান বিচারপতির পদটি নিয়ে রাজনৈতিক সমীকরণের বিষয়টি বাতিল হয়ে যায়।

একাদশ প্রধান বিচারপতি মাহমুদুল আমিন চৌধুরী ২০০১-এর ১ মার্চ থেকে ২০০২ সালের ১৭ জুন পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

দ্বাদশ প্রধান বিচারপতি মাইনুর রেজা চৌধুরী দায়িত্বে ছিলেন ২০০২-এর ১৮ জুন থেকে ২০০৩ সালের ২২ জুন পর্যন্ত।

ক্রয়োদশ প্রধান বিচারপতি কে এম হাসান ছিলেন ২০০৩-এর ২৩ জুন থেকে ২০০৪ সালের ২ জানুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

চতুর্দশ প্রধান বিচারপতি সৈয়দ জে আর মোদাচ্ছির হোসেন ২০০৪-এর ২৭ জানুয়ারি থেকে ২০০৭ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন।

পঞ্চদশ প্রধান বিচারপতি মো. রুহুল আমিন ২০০৭-এর ১ মার্চ থেকে ২০০৮ সালের ৩১ মে পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

ষোড়শ প্রধান বিচারপতি এম এম রুহুল আমিন ২০০৮-এর ১ জুন থেকে ২০০৯ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

সপ্তদশ প্রধান বিচারপতি মো. তাফাজ্জাল ইসলাম ২০০৯-এর ২৩ ডিসেম্বর থেকে ২০১০ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন।

অষ্টাদশ প্রধান বিচারপতি মোহাম্মদ ফজলুল করীম দায়িত্বে ছিলেন ২০১০-এর ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

ঊনবিংশ প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক ২০১০-এর ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ২০১১ সালের ১৭ মে পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন। তার দায়িত্বে থাকার সময়েই তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা অসাংবিধানিক ঘোষিত হয়।

বিংশতম প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন দায়িত্বে ছিলেন ২০১১-এর ১৮ মে থেকে ২০১৫ সালের ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত।

একবিংশতম প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত হয়েছেন। তিনি ২০১৫-এর ১৭ জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের ১১ নভেম্বর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণার রায় দেন। পদত্যাগের আগে ওই বছরের ১৪ অক্টোবর তিনি দেশের বাইরে যান। ফেরার কথা ছিল নভেম্বরে।

ওই বছরের ২ অক্টোবর তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে এক মাসের ছুটির আবেদন করেন। এরপর ১৩ অক্টোবর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের বাইরে অবস্থানের অনুমতি চেয়ে আরেকটি আবেদন করেন।

ফেরার কথা ছিল যেদিন, তার পরদিনই তিনি সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন।

সাবেক ফারমার্স ব্যাংক থেকে ৪ কোটি টাকা আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে করা মামলায় গত ৯ নভেম্বর তার ১১ বছরের সাজা ও ৪৫ লাখ টাকা জরিমানা হয়। তবে দুটি সাজা একই সঙ্গে চলবে বলে তাকে কারাগারে থাকতে হবে সাত বছর।

সিনহা পদত্যাগ করার পর ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা। ২০১৭-এর ১২ নভেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্ব পালনের পর তিনিও পদত্যাগ করেন। সে সময় ধারণা করা হয়, তাকে প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব না দেয়ায় তিনি এই সিদ্ধান্ত নেন।

২২তম প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ২০১৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি শপথ নেন। পৌনে তিন বছরের কিছু বেশি সময় তিনি দায়িত্ব পালন করলেন।