নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
জীবনের অনেকটা সময় স্পেনের ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনায় রাজার মতো দাপুটেভাবে কাটিয়েছে লিওলেন মেসি। কিন্তু এই ক্লাব ছেড়ে প্যারিসের ক্লাব পিএসজিতে যোগ দেওয়াই যেনো কাল হয়েছে মেসির জন্য। পিএসজিতে সময়টা একেবারেই ভালো যাচ্ছে না মেসির। তার বার্সেলোনার ক্লাব সতির্থ নেইমার পিএসজিতে থাকলেও কেমিস্ট্রিটা ঠিক জমে উঠছে না দু’জনের। যেমনটা জমে উঠতো তাদের সাবেক ক্লাব বার্সেলোনার হয়ে খেলাতে। পিএসজিতে নেইমার যাও আলো ছড়াচ্ছিল, কিন্তু মেসি দলটিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে তাদের খেলা নিয়ে আলোচনার থেকে সমালোচনাই হচ্ছে বেশি। প্রতি খেলায় হতশ্রী পারফরমেন্স দিয়ে যাচ্ছে দু’জনই। সেই তুলনায় দলকে মনে হচ্ছে একাই টেনে নিয়ে যাচ্ছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। পিএসজির চালকের আসনে এখন এমবাপ্পে থাকলেও মেসি-নেইমারের বাজে পারফরমেন্সের কারণে দলগত ভালো কিছু আসছে না।

গত ১০ মার্চ রিয়াল মাদ্রিদের কাছে বড় এক ধাক্কাই খেয়েছে পিএসজি। দলটিকে বিদায়ই করে দিয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের লড়াই থেকে। তারকাখচিত এক দল নিয়েও এমন ব্যর্থতার ফলে দলটিতে এখন বড় পরিবর্তনের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। তাতেই উঠছে প্রশ্ন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এই ব্যর্থতার পর মেসি-নেইমারকে রাখবে পিএসজি? ফরাসি সংবাদ মাধ্যম লেকিপে সম্প্রতি এইসব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে। তাতে জানা গেছে চলতি মৌসুম শেষে কাদের আর দেখা যাবে না ফরাসি দলটির জার্সি গায়ে সে বিষয়েও। পিএসজি এখনো কিলিয়ান এমবাপ্পেকে ধরে রাখতে মরিয়া। কারণ চালকের আসনে রয়েছেস সে। দিনের পর দিন নিজের পারফরমেন্সে আলো ছড়াচ্ছেন। সেজন্যে ১০০০ কোটি টাকার একটা প্রকল্পের প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে ফরাসি এই ফরোয়ার্ডকে। তবে লেকিপে জানাচ্ছে, ফরাসি এই তারকার বিনামূল্যে পিএসজি ছেড়ে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেওয়ার বিষয়টি অনেকটাই নিশ্চিত। ফলে আগামী মৌসুমে তাকে হয়তো আর দেখা যাবে না প্যারিসের জার্সি গায়ে।

এদিকে লেকিপে আরও জানাচ্ছে, আর্জেন্টাইন তারকা ডি মারিয়াকেও আর নিজেদের পরিকল্পনায় রাখছে না পিএসজি। ফলে চলতি মৌসুমই ফরাসি দলটিতে আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা জয়ের নায়কের শেষ। এছাড়াও মেসি ও নেইমার দু’জনকেই আরও এক বছরের জন্য হয়তো ধরে রাখবে পিএসজি। নির্ভরযোগ্য সূত্র ধরে ফরাসি পত্রিকাটি জানাচ্ছে, ফ্রান্সে নাকি সুখেই আছেন সাবেক বার্সেলোনা অধিনায়ক। পিএসজিকে সহসাই বিদায় বলার কোনো কারণই নেই তার সামনে।

এদিকে নেইমারের পরিস্থিতিটাও প্রায় একই। ২০২৫ সাল পর্যন্ত তার চুক্তির মেয়াদ আছে। তার যা বেতন, সেটা দেওয়ার মতো সামর্থ্য ইউরোপের সিংহভাগ ক্লাবের নেই। যাদের আছে, তারাও এই মুহূর্তে চাইছে না তাকে। এমন পরিস্থিতির কারণেই মূলত নেইমারকে ধরে রাখছে পিএসজি। ধরে রাখলেই বা কি? পিএসজিকে যারা ভালোবাসে সবাই মাদ্রিদের হতাশার রাতের পর কষ্টে আছে। কারণ সবার মধ্যে অনেক আশা ছিল যে, মেসি-নেইমার যে দলে রয়েছে সেই দল হারতে জানে না। কিন্তু সম্প্রতি তাদের পারফরমেন্স তাদের দলে থাকা না থাকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে সাহস যোগাচ্ছে।