আবুল হাসান কোটচাঁদপুর ঝিনাইদহ ঃ
২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সকল শহীদের রুহের মাগফেরাত কামনা করি।  আর সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি এই লাল সবুজের পতাকা। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান তিনি এই অবহেলিত বাঙালির জন্য নিজের বুকের তাজা রক্ত আর বলিষ্ঠ কন্ঠস্বরের মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার সু বাতাস এনে ছিলেন। এই বাঙালির ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে চেয়ে ছিল এদেশের নামধারী কিছু কুলাঙ্গার তদের মিশন ছিল আমরা আমাদের ক্ষমতা ধরে রাখবো পাকিস্তানের নরপিশাচদের মাধ্যমে। দালালী করবো পাকিস্তানীদের। আমাদের মান সম্মান ও এদেশের সু দর্শনীয় চেহারার বাংলার নববধু ও মেয়েদের লালসার পাত্র তৈরি করতে চেয়ছিল সেই নরপিশাচরা ভাল থাকার জন্য ও তাদের পরিবার কে ভাল রাখার জন্য। কিন্তু জাতির জনক এই নরপিশাচ দের সেই মিশন বাস্তবায়িত হতে দেয়নি।জাতির জনক ভেবে ছিলেন এই বাংলার প্রতিটি স্হান আমার আপন ও পরিচিত। এদেশে কোন চরিত্রহীন পরিবারের স্হান হবে না। আমরা বাংলায় কথা বলি আমরা আমাদের অধিকার অন্যের কাছে দালালী জাতি হিসাবে বেঁচে থাকতে চাই না। স্বাধীনতার ঘোষক জাতির পিতা  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান তিনিই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে এদেশ কে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে আমাদের কে উপহার দিয়েছেন। ধন্য পিতা ধন্য তোমার এই বাংলাদেশ উপহার দেওয়ার জন্য। কে বলে রে মুজিব নাই মুজিব সারা বাংলায়।আজকের এই দিনে মুজিব তোমায় মনে পড়ে।মুজিবারের বাংলায় রাজাকারের ঠায় নাই। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু জয় হোক কোটচাঁদপুর উপজেলা  বাসীর।